কবিতা – beanibazarnews24

'কবিতা' এর সর্বশেষ সংবাদ

জীবনের মজা-৩০

প্রকাশকালঃ

তুমি ইচ্ছা করেছিলে, জন্মেছি মাতাল পুনরায় ইচ্ছা কোরে দ্যাখো কত সহজেই মরে যেতে পারি অপেক্ষার ব্যাধিটুকু মন্দ নয়: চাঁদডোবা জলে স্নান সেরে জোনাকি ফুটেছি; অন্ধকারে আলপনা আঁকতে আঁকতে নিভে যাচ্ছে যাবতীয় »

প্রশ্ন

প্রকাশকালঃ

ভোর হল। সোনালী কিরণ ছড়ালো রবি পূর্বাকাশে হেসে হেসে, গাছের ফাঁক ফোকেরে এই প্রভাত হাসি আগুন লাগানো শিমুলের গায় বৌ কথা কয়, কোকিল-দোয়েল শিস দেয় পরম আনন্দে। শিমুলের রূপে- রূপবতী নীল আকাশ সবুজ অরণ্য- আর আমাদের এই জনপদ। ভোর হল। »

ফাগুনের জন্ম দিনে

প্রকাশকালঃ

আরেকটি বসন্তের প্রত্যাশা বাড়াবাড়ি নয়; সবে ফুটতে শুরু করেছে পলাশ। শিমুল শাখায় লাল ফুলের মুঞ্জুরি জোড় বুলবুলির খুনসুটি দেখে মনে স্বাদ জাগতেই পারে! আরেকটি বসন্তের জন্ম দিতে পারলেই কেবল আরেকটি ফাগুনের জন্ম হবে। লাল রঙে যেদিন মান্দার সেজেছিলো সেদিন তার »

ঝরা, বসন্ত আমার

প্রকাশকালঃ

আমার কনিষ্ঠ বোন খাতার পাতায় লিখিল— বসন্ত; অম্নি শুরু হল ঝরা— পাতানৃত্যহাওয়া হলুদ চুম্বনে ঝরে গগনশিরিষের পাতা… সখি, সখি চোখ মেলো ছায়াঢেউ চোখে আনো ঝরাবিদ্যাজ্ঞান আমিও নাদান বস্ত্র খুলে অঙ্গে মাখি এই হাহাকার… পাতা ঝরে, হাওয়া বয় মর্মর মিতালি আজ— »

কার্তিক দুপুর ভুলতে বলে!

প্রকাশকালঃ

ঘরভরা কার্তিকের মিটেল রোদ তারও আগে শীতল কুয়াশা, বুকদীর্ণ বাতাস দখল করে এক চিলতে বিছানা। কাক ডাকতে না ডাকতে বের হই পথের বাঁকে সবুজ কচুপাতায় রূপালি শিশিরকণা গুণতে! কার্তিকের হীমভোরে উষ্ণ মিলনে ধরা দেয়- শিশির-কচুপাতা। ‘ফ্ল্যাসব্যাক’এ যাওয়ার সুযোগ না রেখে »

জীবনের মজা- ২৯

প্রকাশকালঃ

উৎসবক্লান্ত মেয়েরা ভাঙাচোরা দেহে ফিরে গেছে পথিকের সাথে, ফিরে গেছে দীর্ঘশ্বাসের বাড়ি। এখন সন্ধ্যায় দিগন্তবিস্তৃত উদাসী হাওয়ার লুটোপুটি— মরা যৌবনের মর্ম-দেনা জাগিয়ে তোলে »

এখানে কেউ থামে না

প্রকাশকালঃ

নাহয় পথ চেয়ে বসে থাকাটাই ভুল হলো… চোখপথে কবুতর উড়ে যেতে যেতে থামে না সোনা বউ-বাজপাখিরা ডানার ওম ভেঙ্গে চলে যায় ইস্টিশন নেই বলে কী থামতে মানা নাহয় ইস্টিশন না থাকাটাই ভুল হলো ওই নদীগুলোও মিলেছে চোখপথে আকাশটা সব নীল »

জীবনের মজা (২৮)

প্রকাশকালঃ

তুমি কুয়াশার স্নেহ-মাখা মোলায়েম স্বরে উচ্চারণ করলে ‘ঘুম’, কী বিস্ময়; আমার পালিত পাখিদের সব ডানা, স্বাধীন উড়াল, আকাঙ্ক্ষার হলুদ পালক, জাদুমন্ত্রে নিমেষেই গুম হয়ে গেল! »

জীবনের মজা ২৭

প্রকাশকালঃ

মাটি খুঁড়ে কী খুঁজবি? প্রত্নজন্ম, তার ঘুম-দাগ? কী চাইবি স্মৃতিবিভ্রমের কাছে? দীর্ঘতম সুপ্তির বয়ান? ষড়ঋতুর সূর্যাস্তে রক্তিম দোহাই- খুঁড়িস না আমার ঘুমপৃষ্ঠা; জাগরণে সুখ নাই, খুঁড়িস না আমার ব্যক্তিগত অন্ধকার’ ঘুমের আফিমে ডুবে এ জীবন প্রত্ন হয়ে »

‘গল্পে রক্তের দাগ’

প্রকাশকালঃ

তার পর ফিনকি দিয়ে ঝরে পড়া সেই রক্তের দাগ নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। দেয়ালের যৌবন ফুরিয়েছে, খসে পড়া ইটগুলো রক্তের বোঝা বহন করতে করতে ক্লান্ত- বিবর্ণ। ক্ষয়ে যাওয়া চেহারা নিয়ে কেমন বিমর্ষ চোখে তাকায়! রক্তজল ধারণ করা ঘাস আর রক্তগন্ধে শোভিত »