১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং | ৩০শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অবাধে ভারত থেকে আসছে গরু -কানাইঘাটের সড়কের বাজার

https://beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2019/11/3434-1200x630.jpg

করিডোরবিহীন গরুর হাট সিলেটের সীমান্তবর্তী উপজেলা কানাইঘাটের সড়কের বাজার। প্রতিদিন সীমান্ত দিয়ে চোরাই পথে আসা হাজারো ভারতীয় গরু নিয়েই বসে ওই হাট। কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে সেখান থেকে সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে যায় এসব গরু। করিডোর ছাড়া এভাবে ভারতীয় গরুর অবৈধ বেচাকেনায় সরকার হারাচ্ছে লাখ লাখ টাকার রাজস্ব। দীর্ঘদিন ধরে এই ব্যবসা চলে এলেও প্রশাসন নির্বিকার।

সারারাত বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে আসা এসব গরু প্রতিদিন ভোর থেকে দুপুরের মধ্যে সড়কের বাজার থেকে ট্রাক ও পিকআপে চলে যায় বিভিন্ন স্থানে। শুধু গরু রাখার জন্য রাস্তার দু’পাশে, বাজারের ভেতর এমনকি বাড়ির আঙিনায় তৈরি করা হয়েছে বেশকিছু শেড। ভোরে সেখানে ২০০ থেকে আড়াইশর মতো ট্রাক প্রতিদিন গরু নিতে আসে। মাঝেমধ্যে পুলিশ ও বিজিবি চোরাই পথে আসা কিছু গরু আটক করলেও থেমে থাকে না চোরাচালান। সম্প্রতি সিলেট বারের মইনুল ইসলাম বুলবুল নামে এক আইনজীবী সাড়ে ৪০০ কোটি টাকা ভারতে পাচার, ঘুষ আদায় ও চোরাই গবাদি পশুর অবৈধ হাট বসিয়ে রাষ্ট্রের কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগে কানাইঘাটের তৎকালীন ওসি, জনপ্রতিনিধিসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

জানা গেছে, সড়কের বাজারে প্রতিদিন কোটি কোটি টাকার গরু বিক্রি হলেও বাজারের নিয়ন্ত্রণ নেই উপজেলা প্রশাসনের হাতে। স্থানীয় পূর্বদিঘিরপার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলী হোসেন কাজল জানান, সড়কের বাজারটি ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা উপজেলা পরিষদের অধীনে নয়। এটি আব্দুল গফুর ওয়াক্‌ফ এস্টেটের মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে আসছে। যার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট। এখানে কারও নজরদারি নেই।

স্থানীয় সাবেক ছাত্রদল নেতা আবু রায়হান পাভেল নিজেকে ইজারাদার দাবি করলেও মূলত তিনি, জনপ্রতিনিধিসহ একটি স্থানীয় সিন্ডিকেট চোরাচালানের সঙ্গে জড়িত। চলতি বছর বাজারটি ৬৭ লাখ টাকায় নিলাম নিয়েছেন দাবি করে তিনি সমকালকে বলেন, ‘আমি বাজার ইজারা নিয়েছি। টোল আদায় করি, রসিদ দেই। চোরাকারবারির সঙ্গে আমি জড়িত নই।’

স্থানীয় সূত্রমতে, এক সময় করিডোরের মাধ্যমে সিলেটের কয়েকটি সীমান্ত দিয়ে গরু নিয়ে আসতেন ব্যবসায়ীরা। কয়েক বছর ধরে করিডোর বন্ধ থাকায় চোরাকারবারিরা সক্রিয় হয়ে ওঠে। সম্প্রতি কানাইঘাটের মুলাগুল, ডনা, সোনারখেল, বালুকমারা, কারাবাল্লা ও জৈন্তাপুর উপজেলার লালাখাল ও জকিগঞ্জের আটগ্রামসহ কয়েকটি সীমান্ত এলাকা দিয়ে গরু চোরাচালান বেড়ে গেছে। বর্তমানে প্রতিদিন দুই থেকে তিন হাজার গরু আসে ওইসব সীমান্ত দিয়ে। একটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে সরাসরি ভারত থেকে এসব গরু কৌশলে বাংলাদেশে নিয়ে আসা হয়। সারারাতই চলে গরু চোরাচালান। অভিযোগ উঠেছে, পুলিশ, বিজিবি এবং বিভিন্ন মহল গরু সিন্ডিকেট থেকে নিয়মিত টাকা পায়। গরুর আকার অনুযায়ী ৩০০ থেকে এক হাজার ৩০০ টাকা পর্যন্ত পৃথকভাবে দেওয়া হয়।

বিষয়টি পুরোপুরি সত্য নয় দাবি করে কানাইঘাট থানার ওসি শামসুজ্জোহা সমকালকে জানান, ৩২টি ভারতীয় গরু বর্তমানে থানায় আটক রয়েছে। পুলিশ নিয়মিত দায়িত্বের পাশাপাশি চোরাচালান রোধে কাজ করছে। এদিকে বিজিবি-১৯-এর সুরইঘাট কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার রফিক জানিয়েছেন, তার এলাকা দিয়ে কোনো চোরাচালান হয় না।

কানাইঘাট উপজেলায় অতিরিক্ত দায়িত্ব পালনকারী জৈন্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌরিন করিম সমকালকে বলেন, করিডোর ছাড়া ভারত থেকে নিয়ে আসা গরু দিয়ে যে হাট বসে তা আমার জানা ছিল না। আমি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেব।

সংবাদ সৌজন্যে- দৈনিক সমকাল

A+ A-

সর্বশেষ সংবাদ

নির্বাচিত হয়ে সাবেক শিক্ষামন্ত্রীর পা ধরে কদমবুচি করলেন আউয়াল! (ভিডিওসহ)

শনি ও সোমবার সকাল-বিকাল বড়লেখায় বিদ্যু সরবরাহ বন্ধ থাকবে

পেঁয়াজের ডাবল সেঞ্চুরী!

বিয়ানীবাজার আ.লীগের নবনির্বাচিত সভাপতি-সম্পাদককে সাবেক শিক্ষামন্ত্রীর অভিনন্দন (ভিডিওসহ)

সাধারণ সম্পাদক পদে আউয়াল নির্বাচিত, পৌরশহরের সমর্থকদের বিজয় মিছিল

সভাপতি পদে আতাউর নির্বাচিত, পৌরশহরে সমর্থকদের বিজয় মিছিল

ঘোষণাঃ

Translate »