একাত্তরের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেওয়া ঐতিহাসিক ভাষণকে ইউনেস্কো ‘ওয়ার্ল্ডস ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারের’ অন্তর্ভুক্ত করেছে। এর ফলে ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে গণ্য হবে।

ইউনেস্কোর ভাইস-প্রেসিডেন্ট ও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি এ তথ্য জানানা।

তিনি বলেন, ইউনেস্কোর সদর দফতর ফ্রান্সের প্যারিসে ৩০ অক্টোবর সোমবার জাতিসংঘের এই সংস্থাটির মহাপরিচালক ইরিনা বোকাভো এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

তালিকাভুক্তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে ইন্টারন্যাশনাল অ্যাডভাইজরি কমিটি (আইএসি)। গত ২৪-২৭ অক্টোবর পর্যন্ত বৈঠক করে ৭ মার্চের ভাষণকে ইউনেস্কো স্বীকৃতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় আইএসি কমিটি।

আন্তর্জাতিক তাৎপর্য রয়েছে এমন বিষয়গুলোকে বিশ্ব আন্তর্জাতিক রেজিস্টারের মেমোরিতে তালিকাভুক্ত করে ইউনেস্কো। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ আন্তর্জাতিক দলিলে অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে তালিকাভুক্ত ঐতিহ্যের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪২৭টিতে।

১৯৭১ সালে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে (তৎকালীন রেসকোর্স ময়দান) স্বাধীনতাকামী ৭ কোটি মানুষকে যুদ্ধের প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বঙ্গবন্ধু ভাষণ দিয়েছিলেন। তার ওই ভাষণের ১৮ দিন পর পাকিস্তানি বাহিনী বাঙালি নিধনে নামলে শুরু হয় প্রতিরোধ যুদ্ধ। নয় মাসের সেই সশস্ত্র সংগ্রামের পর আসে বাংলাদেশের স্বাধীনতা।

উল্লেখ্য, চলমান ৩৮তম সেশনেও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি(২০১৫-২০১৭ সাল) এ সংস্থাটির ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ৩৯ তম সাধারণ অধিবেশন (২০১৭-২০১৯ সাল) এর জন্য পুনরায় ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন।

শিক্ষামন্ত্রী প্যারিসে বর্তমানে চলমান অধিবেশনে ৩০ অক্টোবর -১৪ নভেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।