বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের গজারাই দিঘীর পার এলাকার হাওরে একটি দগ্ধ লাশ পাওয়া গেছে। বুধবার দুপুরে গ্রামবাসী লাশটি দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেন।

স্থানীয়রা ধারণা করছেন লাশটি অজ্ঞাত কোন মহিলার। তাকে হত্যা করে নেড়া দিয়ে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। মুলত: খুনিরা লাশের পরিচয় চাপা দিতে হত্যার পর এমন নৃশংস ঘটনা ঘটিয়েছে বলে স্থানীয়রা অনুমান করছেন। এমন নৃশংস ঘটনার খবর পেয়ে আশপাশ এলাকা থেকে উৎসুক জনতা ছুটে এসেছেন।

গজারাই গ্রামের লুৎপুর রহমান ফয়ছল বলেন, লাশটি কোন মহিলার হবে এটি নিশ্চিত করে বলা যায়। লাশের মাথার চুলগুলো লম্বা (কিছু চুল পুড়ে যায়নি)। তবে কোন এলাকার মহিলা সেটি পুলিশ তদন্তে বেরিয়ে আসবে।

ঘটনাস্থলে থাকা সাংবাদিক ছাদেক আহমদ আজাদ বলেন, লাশটি দেখে কোন মহিলার মনে হয়েছে। ছোট পা ও চুল লম্বা দেখে এটি অনুমান করা গেছে। ঘটনাস্থলে বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ রয়েছে। তারা লাশের সুরতহাল সম্পন্ন করছে। তিনি বলেন, আমার ধারণা- অজ্ঞাত খুনিরা প্রথমে এ মহিলাকে হত্যা করে পুরে লাশটি হাওরে নিয়ে এসে আমন ধানের নেড়া দিয়ে ঢেকে পরে আগুন লাগিয়ে দেয়। এসব কাজ রাতের শেষভাগে করেছে। এর আগে করলে এলাকার কেউ না কেউ আগুন দেখতে পেত।

বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হিল্লোল রায় বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। যতটুকু জানা গেছে লাশটি আংশিক পুড়ানো রয়েছে। লাশের পরিচয় এখনো শনাক্ত হয়নি। আমরা লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন সম্পন্ন করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট এমএজি ওসমানি হাসপাতালে প্রেরণ করা হবে।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

বিয়ানীবাজার কোয়াব'র নতুন সিজনের জার্সি উন্মোচন ও একাডেমি'র বিশেষ প্রশিক্ষণ