বিরোধীদলীয় হুইপ সিলেট-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম উদ্দিন এমপি বলেছেন, প্রবাসীরাই সত্যিকার অর্থে দেশ প্রেমিক। তাদের পাঠানো রেমিটেন্স দেশের অর্থনীতির চালিকাকে আজকের অবস্থানে নিয়ে এসেছে। সরকার মধ্যম আয়ের দেশ হিসাবে ঘোষণা দেয়ার দ্বারপ্রান্তে রয়েছে প্রবাসীদের শ্রম ও ঘামের বিনিময়ে। পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে বিমান টিকেট মাত্র ৯০ হাজার টাকা খরচে সৌদি আরবে শ্রমিক ভিসায় লোক আসতেছে উল্লেখ করে হুইপ বলেন, সেখানে বাংলাদেশী শ্রমিকদের একই কাজের ভিসায় খরচ করতে হয় ৬/৭ লাখ টাকা- এটা খুবই অযৌক্তিক এবং অমানবিক। লেবার মিনিস্ট্রির মাধ্যমে ভারতের মতো জি টু জি (গভর্নমেন্ট-গভর্নমেন্ট) ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন দেশে শ্রমিক পাঠালে সাধারণ জনগণ এর সুফল পাবে। এই ব্যবস্থা চালু করার জন্য মহান সংসদে এই বিষয়ে দাবি উত্তাপন করবো।

গতকাল রোজ শুক্রবার সৌদি আরবের জেদ্দাস্থ বৃহত্তর সিলেট আওয়ামী পরিবারের উদ্দ্যোগ্যে আয়োজিত ঈদ পূণর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

হুইপ সেলিম বলেন, আমি নিজে একজন প্রবাসী ছিলাম, প্রবাসীদের সমস্যা  আমি বুঝি। বার বার আমি প্রবাসীদের জন্য ড়হবone stop service এবং একটি শক্তিশালী ও কার্যকর প্রবাসী কল্যাণ কমিশন গঠনের জন্য সংসদে প্রস্তাব করেছি। প্রবাসীরা হচ্ছে দেশের সম্পদ, তাদেরকে দেশমুখী করতে হবে। প্রবাসীদের দেশে বিনিয়োগ করার জন্য আরো বেশী সুযোগ তৈরি করে দিতে হবে।

তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক সফল রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ও বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ এমপি জেলে থাকাকালীন আমরা নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেছি। গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা রক্ষায় ১০ম জাতীয় নির্বাচনে জাতীয় পার্টি অংশ গ্রহন করার কারনে বর্তমান সরকার দেশ পরিচালনা করছে। আমরা সরকারের গঠনমূলক কঠোর সমালোচনা করছি সংসদে এবং সংসদের বাইরে। বাংলাদেশের ইতিহাসে সত্যিকার অর্থে সংসদে অংশ গ্রহনের মাধ্যমে সংসদকে প্রানবন্ত আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হয়েছে। বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ এমপির নেতৃত্বে বিরোধীতার জন্য বিরোধীতা নয় সত্যিকারভাবে জনগনের কথা সংসদে তুলে ধরার চেষ্টা করছি।

বৃহত্তর সিলেট আওয়ামী পরিবারের সভাপতি বদরুল আলম সেলিমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানার পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের কনসাল জেনারেল এফএম বুরহান উদ্দিন, বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সভাপতি কাজী নিয়ামত বশির ও অভিবাবক কমিটির সভাপতি আশিকুর রহমান, বৃহত্তর সিলেট আওয়ামী পরিবারের সহ-সভাপতি আব্দু রব চুনু, আব্দুল ফাত্তাহ, ফখরুল ইসলাম, রুস্তম আলী ইসকন্দর সহ-সাধারন সম্পাদক এরশাদ আহমদ, জিতু আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক ইসলাম উদ্দিন, সাদ আহমদ, জকিগঞ্জ প্রবাসী ঐক্য পরিষদের সভাপতি ফজলুর রহমান, সাধারন সম্পাদক ইকবাল আহমদ, জেদ্দা জাতীয় পার্টির সহ-সভাপতি আসলাম ব্যাপারী, সহ-সভাপতি রোহেল মিয়া, তোফাজ্জল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক সোহাগ গাজী, গিয়াস উদ্দিন, তোফাজ্জল আহমদ, রাজু আহমদ, মুহিবুর রহমান, উবায়দুল হক, জাবদ মুন্না, বেলাল আহমদ, আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।