জকিগঞ্জে সুরমা-কুশিয়ারা নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে নতুন করে কুশিয়ারা নদীর বড়চালিয়া, সুপ্রাকান্তি ও রারাই গ্রামে বেড়িবাঁধ ভেঙে দ্রুত লোকালয়ে পানি প্রবেশ করছে। ফলে বন্যা পরিস্থিতি ক্রমেই নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ছে।

মঙ্গলবার জকিগঞ্জের আমলসীদের সুরমা কুশিয়ারা পানি বিপৎসীমার ১৫০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা।

ইতিপূর্বে সুরমা নদীর বেড়িবাঁধ ভেঙে নুর নগর, কোনাগ্রাম, বড়বন্দ, আকাশমল্লিক, বাল্লাহ, শরীফাবাদ, নোয়াগ্রাম, উত্তর খিলোগ্রাম, চকবারাকুলি, ও কচুয়া এলাকায় দিয়ে পানি লোকালয়ে প্রবেশ করছে।

এদিকে গতকাল জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে দুর্যোগ ব্যবস্থপনা কমিটির জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার পল্লব হোম দাসের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন সংসদ সদস্য হাফিজ আহমদ মজুমদার। বক্তারা দুর্যোগ কবলিত এলাকা ও পানিবন্দি মানুষদের কাছে দ্রুত সাহায্য পাঠানোর আহবান জানান।

স্থানীয়দের অভিযোগ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবহেলায় বর্ষা মৌসুমে মানুষের চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। বার বার বেড়িবাঁধ সংস্কারের দাবি জানালেও পানি উন্নয়ন বোর্ড সারা বছরই নিরব ভুমিকা পালন করে।