সিলেট থেকে টেকনাফ অভিমুখে রোডমার্চ নগরের হুমায়ন রশীদ চত্বর থেকে শুরু হয়ে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের রশীদপুরে পৌছালে আটকে দিয়েছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় ‘হিউমিনিটি ফর রোহিঙ্গা’ নামক সংগঠনের রোডমার্চে বাধা প্রদান করে পুলিশ প্রশাসন। সিলেট দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ রোডমার্চে বাঁধা প্রদান করে। এসময় রোডমার্চে অংশ নেওয়া শতাধিক গাড়ি থেকে যাত্রীরা নেমে বিক্ষোভ সমাবেশ করে।

সংগঠনটির চেয়ারম্যান মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী জানান, আমরা প্রশাসনের যথাযথ আবেদনের পর রোড মার্চের আয়োজন করেছি। তারপরও পুলিশ আমাদের আটকে দিয়েছে। এটি সম্পূর্ণ বেআইন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এ ব্যাপারে কথা বলতে সিলেট দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খায়রুল ফজলের সাথে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ি মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির উপর সেদেশের সরকার ও সেনাবাহিনীর ধর্ষণ, হত্যাযজ্ঞ, অনবরত নির্যাতনের প্রতিবাদে ‘হিউমিনিটি ফর রোহিঙ্গা’ নামক সংগঠনের উদ্যোগে সিলেট থেকে টেকনাফের উদ্দেশ্যে রোডমার্চ বৃহস্পতিবার সকালে সিলেট হুমায়ন রশীদ চত্বর থেকে শুরু হয়। রোডমার্চে প্রায় ৫০-৬০টি গড়ি অংশ নেয়। রোডমার্চে সিলেট জেলা থেকে আরও প্রায় দুই শতাধিক গড়ি বহর নিয়ে দুপুরের ভিতরে ব্রাক্ষণ বাড়িয়া পৌছানের কথা ছিলো।