সিলেটে ৪ বছরের এক শিশু ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডের ক্লু উদঘাটন করেছে সিআইডি। সেই সাথে ধর্ষক ও হত্যাকারীকে গ্রেফতারের পর আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী গ্রহণ করে তাকে কারাগারে পঠানো হয়েছে। 

তার নাম কার্তিক চন্দ্র মিস্ত্রি (৬৫)। তিনি বরিশালের গৌরনদি উপজেলার বেদগর্ভ গ্রামের মৃত জগবন্ধু মিস্ত্রির ছেলে।

বর্তমানে তিনি বিশ্বনাথের সিংগেরকাছ বাজারের বাসিন্ধা ও চাঁদসির ক্ষত চিকিৎসালয় নামক প্রতিষ্ঠানের মালিক।

সিআইডি সূত্রে জানা যায়, বিশ্বনাথ থানায় ২০১৯ সালের ২ মে দায়েরকৃত একটি ক্লু লেস হত্যামামলার স্বাক্ষি ছিলেন কার্তিক মিস্ত্রি। পরে মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পায় সিআইডি।
তদন্তের দায়িত্ব পান পুলিশ পরিদর্শক ( নিরস্ত্র) মো. আশরাফ উজ্জামান।

তদন্ত কর্মকর্তার সন্দেহ হলে তিনি কার্তিকের যাবতীয় তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করেন এবং ব্যাপক অনুসন্ধানে হত্যাকাণ্ডের সাথে কার্তিকের সংশ্লিষ্টতার ব্যাপারে নিশ্চিত হন।
গত ২৭ নভেম্বর তাকে গ্রেফার করা হয়। 

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কার্তিক স্বীকার করেছেন যে, তিনি সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার বীরকলস গ্রামের শহীনুরের ৪ বছরের কন্যা শিশু খাদিজাকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছেন।

পরে গত ২৮ নভেম্বর তাকে আদালতে তোলা হলে তিনি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেন।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার সুজ্ঞান চাকমা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

‌বিয়ানীবাজারে সুগন্ধি জাতের চালের উৎপাদন কম!