সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ কমিশনার (উত্তর) মো. আজবাহার আলী শেখ পিপিএম বলেছেন, জীবনকে সুন্দর ও প্রতিষ্ঠিত করতে হলে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। ধর্মীয় কু-সংস্কারের কারণে আগেকার দিনে নারীরা স্কুল-কলেজে যেতে পারতেন না। সময়ের পরিবর্তনে আজ নারীরা উচ্চশিক্ষিত এবং সরকারি বেসরকারি পর্যায়ে সর্বোচ্চ পদে চাকুরি করতে পারছেন। পড়ালেখায় নারীদের আরো এগিয়ে আসার আহবান জানান পুলিশের এ উর্ধ্বতন কর্মকর্তা। তিনি মেট্রোসিটি উইমেন্স কলেজে অধ্যয়নরত ছাত্রীদের যাতায়াতে যাতে কোন সমস্যা না হয় সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি রাখার ঘোষণা দেন।

সোমবার দুপুরে সিলেটের উপশহরে মেট্রোসিটি উইমেন্স কলেজের নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথাগুলো বলেন।

মেট্রোসিটি উইমেন্স কলেজ’র চেয়ারম্যান আলহাজ মো. মোসলেহ উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক সিলেটের ডাক পত্রিকার ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ওয়াহিদুর রহমান ওয়াহিদ, কলেজ গভর্নিংবডির সদস্য মো. শাহজাহান আলী, নির্বাহী পরিচালক বাহাউদ্দিন বাহার, কবির আহমদ সিদ্দিকী।

                                                                  নবীন বরণ অনুষ্ঠানে কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রোটারিয়ান ওয়াহিদুর রহমান ওয়াহিদ বলেন, পড়ালেখা করে শুধু ভালো রেজাল্ট কিংবা শিক্ষিত হলে হবে না। তোমাদেরকে অবশ্যই সুশিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন নারী। তিনি দেশকে এগিয়ে নিতে দিনরাত পরিশ্রম করছেন। এজন্য তিনি এ কলেজের ছাত্রীদের পড়ালেখা শেষে দেশগড়ায় আত্মনিয়োগ করার আহবান জানান।

নবীনবরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মেট্রোসিটি উইমেন্স কলেজের অধ্যক্ষ আহমেদ সালেহ বিন মালিক, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক আয়েশা আক্তার, কলেজের ছাত্রী আলিমা আক্তার, নুসরাত বেগম অনন্য ও মারুফা বেগম।

কলেজের প্রভাষক মাজহারুল হক চৌধুরী সালমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মেট্রোসিটি উইমেন্স কলেজের কো-অর্ডিনেটর প্রভাষক মো. আলাউদ্দিন আলাল, সুলতানা নিলুফা ইয়াছমিন, সাংবাদিক আরিফ আহমদ, সুয়াইবুর রহমান স্বপন, প্রভাষক বিক্রম দে, মোস্তফা সাহাদাত আদনান, পপি বিশ্বাস শফি উদ্দিন, ইফতেখার নোমান, বোরহান উদ্দিন রব্বানী, তাহমিনা হক প্রমুখ।

                      নবীন বরণ অনুষ্ঠানের সমাপনী বক্তব্য রাখছেন কলেজের চেয়ারম্যান আলহাজ মো. মোসলেহ উদ্দিন খান

সভাপতির বক্তব্যে বিশিষ্ট শিল্পপতি মোসলেহ উদ্দিন খান বলেন, আমরা ব্যবসায়ীক দৃষ্টিকোণ থেকে এ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তুলিনি। আমাদের লক্ষ্য, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনারবাংলা গড়তে জাতিকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করতে ভূমিকা রাখা। তিনি সাবেক শিক্ষামন্ত্রী কে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এ প্রতিষ্ঠান বিয়ানীবাজারের শিক্ষার্থীরা অগ্রধিকারে সুযোগ পাবে। এসময় তিনি কলেজের শিক্ষক, অভিভাবক, অধ্যয়নরত ছাত্রীদের সাফল্য কামনা করেন।

ফুলেল শুভেচ্ছা মাধ্যমে রেকর্ড সংখ্যক নতুন শিক্ষার্থীদের বরণ করে কলেজ কর্তৃপক্ষ। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত, নৃত্য ও নাটিকা প্রর্দশন করেন কলেজের শিক্ষার্থীরা।