জকিগঞ্জে ৩ কোটি ৫৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে গঙ্গাজল হাসানিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার চারতলা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২২ জুন) দুপুরে মাদ্রাসার হলরুমে এডহক কমিটির সভাপতি জালাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও প্রভাষক আবুল কালামের উপস্থাপনায় ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লোকমান উদ্দিন চৌধুরী। বক্তব্য রাখেন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোস্তাক আহমদ, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুস সবুর, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান, ঠিকাদার রাখাল দাস, মাস্টার আব্দুস সুবহান, সমাজসেবী মনসুর আলম, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রহমানসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

আলোচনা সভা শেষে মাদ্রাসার বহুতল ভবনের ভিত্তি প্রস্তরের উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লোকমান উদ্দিন চৌধুরী ও এডহক কমিটির সভাপতি জালাল উদ্দিন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লোকমান উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বর্তমান সরকার শিক্ষাবান্ধব সরকার। সরকার দেশের নতুন প্রজন্মকে একটি আদর্শ জাতি হিসেবে তৈরী করার জন্য নিরলসভাবে কাজ করছে। সরকার প্রতি বছর শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিচ্ছে। শিক্ষার প্রতি উৎসাহ দিতে সরকার উপবৃত্তি দিচ্ছে। স্কুল-কলেজের মত সমানভাবে অগ্রাধিকারভিত্তিতে মাদ্রাসাগুলোকেও সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে। প্রতিটি মাদ্রাসায় বহুতল ভবন তৈরী করা হচ্ছে। পর্যাক্রমে উপজেলার সব মাদ্রাসা আধুনিকায়ন করা হবে। আগামীতে মাদ্রাসা শিক্ষায় বাংলাদেশ আরো সাফল্য পাবে।

তিনি বলেন, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। অতীতের তুলনায় বর্তমানে সকল প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের জন্য সম্মানজনক অবস্থান সৃষ্টি করেছে। বর্তমান সংসদ সদস্য হাফিজ আহমদ মজুমদারও একজন শিক্ষা দরদী মানুষ। শিক্ষার উন্নয়নে তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তাঁর পরিশ্রমের কারণে জকিগঞ্জ-কানাইঘাটের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আধুনিকায়ন হচ্ছে।

মাদ্রাসার এডহক কমিটির সভাপতি জালাল উদ্দিন বলেন, ১১৬ বছর পর সাবেক এমপি সেলিম উদ্দিনের আমলে ভবনটির অনুমোদন হয়েছিলো। এরপর নানা কারণে কাজ শুরু হতে বিলম্ব হয়েছিলো। বর্তমান এমপি হাফিজ আহমদ মজুমদারের তদারকির কারণে মাদ্রাসার চারতলা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন হয়েছে। জকিগঞ্জের সবচাইতে পুরনো এ মাদ্রাসার উন্নয়নে বহুতল ভবন উপহার দেয়ায় সরকার ও বর্তমান এমপি হাফিজ আহমদ মজুদার এবং সাবেক এমপি সেলিম উদ্দিনের প্রতি এলাকাবাসী কৃতজ্ঞ।

তিনি আরও বলেন, বহুতল ভবন ও সুন্দর চেয়ার-টেবিল দিয়ে ভালো প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হয় না। ভালো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়তে হলে প্রয়োজন নিবোদিত শিক্ষক। নিবেদিত শিক্ষকরা’ই পারেন একটি প্রতিষ্ঠানকে উন্নত শিখরে পৌঁছতে। তাই শিক্ষার্থীদের সর্বদা শিক্ষকদের পরামর্শ অনুযায়ী লেখাপড়া করতে হবে। শিক্ষার্থীদের ভালো ফলাফলে শিক্ষকদের ভূমিকা অতুলনীয়।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

বিয়ানীবাজারের হাজী মৎস্য খামারে সাফল্যের হাসি