দীর্ঘ পাঁচ দশক পর ১৯৬৬ সালের বাঙালির মুক্তির সনদ ছয়দফা দাবি তথা স্বাধিকার আন্দোলনের প্রথম শহীদ বিয়ানীবাজার উপজেলার ফখরুদ দৌলা মনু মিয়ার স্মরণে নির্মিত স্মৃতি স্তম্ভের উদ্বোধন হচ্ছে আগামী ১৯ আগস্ট শনিবার। এ দিন বিকাল ৪ টায় স্মৃতি স্তম্ভটি এ উদ্বোধন করা হবে। শহীদ হওয়ার পাঁচ দশক পর প্রথমবারের মতো শহীদের নিজ ভূমে কোন স্মৃতি চিহ্ন স্থাপিত হলো।

শহীদ মনু মিয়া স্মৃতিস্তম্ভের উদ্বোধন করবেন ‘শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি পরিষদ’র আহবায়ক শিক্ষাবিদ আলী আহমদ। উদ্বোধন শেষে মনু মিয়ার বাড়ির আঙ্গিনায় দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হবে।

প্রসঙ্গত, স্বাধীকার আন্দোলনের ৫১ বছর পর শহিদ মনু মিয়ার বিয়ানীবাজার পৌরসভার নিজ বাড়ির আঙ্গিনায় নির্মিত হয়েছে এ স্মৃতিসৌধ। ইতিহাস ও ঐতিহ্য সচেতন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ক’জন উদ্যমী মানুষ প্রায় সাড়ে ৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করেছেন দৃষ্টিনন্দন সৌধটি । ছয়টি স্তম্ভের মাধ্যমে সৌধে ছয় দফার প্রতীকী তাৎপর্যের প্রতিফলন ঘটানো হয়েছে। এসব স্তম্ভে আমাদের মুক্তিসংগ্রামের ম্যুরাল চিত্রিত হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৯৬৬ সালের ৭ জুন ৬ দফা দাবিতে সারাদেশে হরতাল পালিত হয়। হরতাল চলাকালে পুলিশের গুলিতে ঢাকার তেজগাঁও এ মনু মিয়া শহিদ হন। তৎকালীন সরকার তার লাশ গুম করে ফেলে । ফলে তাঁর পরিবার লাশ দাফনের সুযোগটিও পায় নি। শহিদ মনু মিয়ার বাড়ি বিয়ানীবাজার পৌরসভার নয়াগ্রামে। তাঁর পিতার নাম মনোহর আলী। মনু মিয়ার পুরো নাম ফখরুদ্দৌলা খান মনু মিয়া। তাঁর একমাত্র কন্যা পুতুল বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী।

এদিকে শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি পরিষদের পক্ষ থেকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি পরিষদের সদস্য সচিব খালেদ সাইফুদ্দিন জাফরী।