সম্পর্কে আগুনই লেগে গেছে। মহাসমস্যায় পিএসজি। নেইমারের সঙ্গে এডিনসন কাভানির সম্পর্কটা পৌঁছে গেছে খুব বাজে জায়গায়। এখন তো বোঝা যাচ্ছে লিওঁ ম্যাচের আগে থেকেই সম্পর্কে প্রভাব পড়তে শুরু করেছিল। লিওঁর বিপক্ষে জেতার পর নিজের ইনস্টাগ্রামে নেইমার শুধু কিলিয়ান এমবাপ্পে আর তাঁর উদ্‌যাপনের ছবি দিয়েছেন। ১৭ সেপ্টেম্বরও একই কাজ করেছিলেন নেইমার। সেবার পিএসজির হলুদ জার্সিতে এমবাপ্পের সঙ্গে উদ্‌যাপনের ছবি দিয়েছিলেন।

শুধু ছবিতেই নয়, সামাজিক মাধ্যমের লিস্ট থেকেও এডিনসন কাভানিকে ছেঁটে ফেলেছেন নেইমার। নিজের ইনস্টাগ্রাম ও টুইটার থেকে নেইমার কাভানিকে ‘আনফলো’ করে দিয়েছেন বলে জানিয়েছে স্পেনের সংবাদমাধ্যম।

কাভানি যদিও দাবি করছেন, ব্রাজিলীয় তারকার সঙ্গে তাঁর কোনো সমস্যা নেই। কানাঘুষা যা ছড়িয়েছে, তার সবই নাকি বানানো গল্প। কিন্তু নেইমারের কাছ থেকে এ ধরনের কোনো বিবৃতি আসেনি। বরং এমন খবর মিলছে, কাভানিকে জানুয়ারিতেই বেচে দেওয়ার জন্য নাকি ক্লাবকে চাপ দিয়েছেন।

গত রোববার লিওঁর বিপক্ষে ম্যাচে ১-০ গোলে এগিয়ে থাকা অবস্থায় কিলিয়ান এমবাপ্পের এনে দেওয়া একটি পেনাল্টি নিয়ে বিবাদটা প্রকাশ্য হয় নেইমার-কাভানির। কে পেনাল্টি নেবেন, সেটি নিয়ে বাদানুবাদ হয়। এর আগে ফ্রি কিক কে নেবেন, তা নিয়ে আরেক সতীর্থ দানি আলভেজের সৌজন্যে রীতিমতো বল নিয়ে কাড়াকাড়ি লেগে গিয়েছিল।

এর উত্তাপ সেদিন ম্যাচ শেষে ড্রেসিংরুমেও গিয়ে পৌঁছেছিল। প্রায় হাতাহাতি লাগা অবস্থায় সতীর্থরা দুজনকে আলাদা করেন। ঘটনার নিয়ন্ত্রণ করতে কোচকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে। কিন্তু উনাই এমেরি যা বলেছেন, তাতে এই ঘটনা তাঁরও নিয়ন্ত্রণে আছে বলে মনে হচ্ছে না। তিনি বলেছেন, পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতে মাঠে নাকি ঠিক করতে হবে, কে নেবেন পেনাল্টি বা ফ্রি কিক!