মানুষ খুব কষ্ট পেলে কাঁদে, আবার কখনও খুব সুখের অনুভূতিতে কাঁদে। কিন্তু হাসতে পারে শুধু আনন্দ পেলেই। কাউকে হাসতে দেখলেও মন ভরে ওঠে ভালো লাগার অনুভূতিতে। সবার মাঝে রাশি রাশি হাসি ছড়িয়ে দিতে কলকাতার জি-বাংলা চ্যানেল আয়োজন করে একটি জনপ্রিয় কৌতুকাশ্রয়ী রিয়েলিটি শো, যার নাম হচ্ছে ‘মীরাক্কেল’ আক্কেল চ্যালেঞ্জার। ২০০৬ সালে শুরু হওয়া এই অনুষ্ঠানটি ভারত, বাংলাদেশসহ সারা পৃথিবীর বাংলা ভাষার মানুষের অন্যতম জনপ্রিয় অনুষ্ঠান হিসাবে স্থান করে নিয়েছে।

গত ১১ অক্টোবর থেকে শুরু হয়েছে জি-বাংলা চ্যানেলের সবচেয়ে টিআরপি পাওয়া অনুষ্ঠান মীরাক্কেল (আক্কেল চ্যালেঞ্জার- ১০)। এর গত বছরের সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে অডিশন শেষে বিচারকদের রায়ে বিয়ানীবাজারের সন্তান কৌতুক অভিনেতা আবিদুল ইসলাম রিমনসহ বাংলাদেশের ৪ জন প্রতিযোগি মীরাক্কেলস-১০ এ অংশগ্রহণের সুযোগ পায়। অবশেষে জনপ্রিয় সেই অনুষ্ঠানে পারফর্ম করতে যাচ্ছেন কমেডিয়ান আবিদুল ইসলাম রিমন। ‘মিরাক্কেল-১০’ এ যোগ দিতে বুধবার দুপুর ১টায় ঢাকার হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ইন্ডগো বিমানের একটি ফ্লাইট যোগে ভারতের কলকাতার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিয়েছেন রিমন।

কৌতুক অভিনেতা আবিদুল ইসলাম রিমনের বাড়ি বিয়ানীবাজার উপজেলার মুড়িয়া ইউনিয়নের নয়াগ্রাম গ্রামে। তিনি হাফিজ ফয়জুর রহমান ও হাজেরা বেগম দম্পতির পুত্র। তিন ভাইয়ের মধ্যে রিমন সবার ছোট। সিলেটের মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি থেকে মার্কেটিং বিভাগে গ্রেজ্যুয়েশন সম্পন্ন করেছেন রিমন। এর আগে সে ভারত সীমান্ত এলাকা নয়াগ্রাম প্রগতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম, পূর্ব মুড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি সম্পন্ন করে।

দেশব্যাপী আবিদুল ইসলাম রিমন একজন স্ট্যান্ডআপ কমেডিয়ান হিসেবে পরিচিত। এ পর্যন্ত সে স্ট্যান্ডআপ কমেডি পারফর্ম করেছে বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) জনপ্রিয় কমেডি ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘হাসতে মোদের মানা’তে। পাশাপাশি বাংলাদেশের একমাত্র কমেডি রিয়েলিটি শো এনটিভি মার্সেল হা শো সিজন ৪-এর ছিল একজন পারফর্মার। এছাড়া সিলেটের জনপ্রিয় গ্রীনবাংলা মিডিয়া হাউজেরও একজন সদস্য সে। তবে সে শুধু বলতে পছন্দ করে না, রম্য লিখতেও পছন্দ করে। সে জাতীয় দৈনিক সমকাল ও কালের কণ্ঠে নিয়মিতভাবে রম্য লিখে যাচ্ছে।

রিয়েলিটি শো মীরাক্কেল-১০ এ সুযোগ পাওয়া ১২ বাংলাদেশীদের মধ্যে একমাত্র সিলেটী রিমন চান আরও এগিয়ে যেতে। প্রিয়জন, সহপাঠীদের কাছে তার মনের সেই বাসনা একাধিকবার ব্যক্ত করেছেন তিনি। রিমনের সামনে সে সুযোগ নিয়ে এসেছে জি-বাংলার মীরাক্কেল আক্কেল চ্যালেঞ্জার্স। এখন দেখার পালা অদম্য প্রাণশক্তি ও প্রতিভার অধিকারী রিমন কলকাতা কিভাবে মাতায়। তার সাফল্যের দিকে তাকিয়ে থাকবে পুরো সিলেটবাসী।

উল্লেখ্য, ‘মীরাক্কেল আক্কেল চ্যালেঞ্জার’ পরিচালনা করেন শুভঙ্কর চট্টোপাধ্যায়। আর অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন মীর আফসার আলী। মূল পর্বগুলোতে বিচারকের দায়িত্ব পালন করেছেন রোদ্রনীল, পাওলি, সোহাম ও কাঞ্চন।