বিয়ানীবাজারের মাথিউরা ইউনিয়নে প্রবাসীদের বিভিন্ন রকম প্রশ্নবানে জর্জরিত হন সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার) আসনের সংসদ সদস্য, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি। আজ বুধবার (২৯ আগস্ট) ইউনিয়নের বিভিন্ন বিদ্যালয়ে দিনব্যাপী পাঁচটি উন্নয়নমূলক কাজের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন ও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদানকালে তিনি অনেক প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছেন। এ সময় শিক্ষামন্ত্রী কৌশলে প্রবাসীদের প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন বলে জানান অনুষ্ঠানে উপস্থিত নেতাকর্মীরা।

বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের সাবেক ছাত্রনেতা ও বর্তমান প্রবাসী কমিউনিটি নেতা আনোয়ার হোসেন শিক্ষামন্ত্রীর কাছে জানতে চান, ‘কার নির্দেশে গত সিলেট জেলা পরিষদ নির্বাচনে মাথিউরা ইউনিয়নকে গোলাপগঞ্জের পাঁচটি ইউনিয়নের সাথে যুক্ত করা হয়েছিল? তিনি শিক্ষামন্ত্রীকে বিয়ানীবাজারবাসীর অভিভাবক উল্লেখ করে জানতে চান, ‘বিয়ানীবাজার-সিলেট যাতায়াতের বিকল্প সংযুক্ত সড়কের লাসাইতলা এলাকায় পৌরশহরের ময়লা-আবর্জনা ফেলে পরিবেশ দূষণকারীর বিরুদ্ধে কোন কার্যকরী পদক্ষেপ নেবেন কি না?’ তিনি প্রশ্ন রাখেন, ‘ঐতিহ্যবাহী বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজ রোডের পাশে বসবাসকারী জনগণ ও ব্যবসায়ীদের মতামত উপেক্ষা করে এ সড়কের নামকরণ করা হয়েছে- এক্ষেত্রে এ অঞ্চলের অভিভাবক হিসেবে আপনার ভূমিকা কি?

মাথিউরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী নূর উদ্দিন লোদী শিক্ষামন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন রাখেন, ‘গত সোমবার (২৭ আগস্ট) মাথিউরা, তিলপাড়া , কুড়ারবাজার ও মোল্লাপুর ইউনিয়ন এবং পৌরসভার একাংশের জনগনের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে লাসাইতলায় সড়কের পাশে বর্জ্য ফেলার প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ কর্মসূচী পালিত হয়েছে। কিন্তু আওয়ামীলীগ মনোনীত পৌর মেয়র লন্ডনের একটি সভায় আন্দোলনকারী জনগণকে দুষ্কৃতিকারী বলে উল্লেখ করেছেন। আপনি জনগণকে নিয়ে কটূক্তিকারী আওয়ামীলীগের দলীয় মেয়রের বিরুদ্ধে কোন প্রদক্ষেপ গ্রহণ করবেন কি না? তিনি আরও বলেন, ‘প্রমথনাথ দাস বিয়ানীবাজারবাসীকে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করার লক্ষ্যে সাম্প্রদায়িকতার উর্ধ্বে উঠে বর্তমান সময়ের বাজারমূল্যের হাজার কোটি টাকার সম্পদ এ অঞ্চলের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও মসজিদ-মন্দিরে দান করেছেন। যিনি এ অঞ্চলকে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করার ব্রত নিয়ে নিজের সম্পদ নিঃস্বার্থভাবে বিলিয়ে দিয়েছেন, তার এ অবদানকে কেন মাত্র সাড়ে তিন’শ মিটার সড়কের মধ্যে সীমাবব্ধ করে রাখা হবে? এছাড়া কেন এ অঞ্চলের ভূমিপুত্র ও সর্বোচ্চ জনপ্রতিনিধি আপনাকে উপেক্ষা করে তড়িগড়ি করে একজন সচিবকে দিয়ে এ সড়ক উদ্বোধন করানো হলো?’ আমরা চাই, বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের নাম পরিবর্তন করে এ মহৎপ্রাণ ব্যক্তির নামানুসারে প্রমথনাথ দাস সরকারি কলেজ নামকরণ এবং তার পরিবারের সদস্যদের নামে কলেজের বিভিন্ন ভবনের নামকরণ করা হোক। পাশাপাশি বর্তমানে নির্মানাধীন দশতলা ভবন ড. জিসি দেব কিংবা স্বাধীকার আন্দোলনের প্রথম শহীদ মনু মিয়ার নামে নামকরণ করা হোক।’

মাথিউরা ইউনিয়নের প্রবীন মুরব্বী ও আওয়ামী লীগ নেতা ডাঃ তছির আলী বলেন- দেশে কিংবা প্রবাসে মাথিউরাবাসীর ন্যায্যদাবী বিবেচনা করে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য শিক্ষামন্ত্রীকে অনুরোধ জানাচ্ছি।

শিক্ষামন্ত্রী প্রবাসীদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘সিলেট জেলা পরিষদে মাথিউরা ইউনিয়নকে গোলাপগঞ্জ উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের সাথে যুক্ত করার বিষয়টি আমার জানার সুযোগ ছিল না। কেননা এটি নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ারে রয়েছে। যখন মাথিউরা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বিষয়টি অবগত করেন তখন আমি তাকে আশ্বাস দিয়েছি, যথাযথ কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে শীঘ্রই এ বিষয়টি সুরাহা হবে। আমি এখনো বলছি, উপজেলা ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এ বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে আমাকে যে জায়গায় কাজে লাগানো যায় তা জানাবেন। ‘ সড়কের পাশে বর্জ্য ফেলার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘কোন অবস্থাতেই কেউ সড়কের পাশে ময়লা-আবর্জনা ফেলে পরিবেশ দূষণ করতে পারবে না। আমি এখানে আসার আগে এ বিষয়ে অভিযোগ উঠতে পারে ভেবে পৌর মেয়রের সাথে যোগাযোগ করেছি এবং নির্দেশ দিয়েছি, দ্রুত সময়ের মধ্যে সড়কের পাশের এ ময়লা-আবর্জনা মাটি ও বালি দিয়ে ঢেকে ফেলতে। আশা করছি, আপনাদের এ সমস্যা স্বল্প সময়ের মধ্যেই সমাধান হবে।’ কলেজ রোডের নামকরণ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘জনগনের মতামত উপেক্ষা করে একটি কক্ষের চেয়ারে বসে যেকোন সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত নয়। এক্ষেত্রে জনগনের মতামত নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়াই উত্তম। যতদ্রুত সম্ভব বিয়ানীবাজার উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান একসাথে বসে জনগনের মতামতের ভিত্তিতে পরবর্তী প্রদক্ষেপ গ্রহণ করার নির্দেশ দিচ্ছি।

[image link=”http://beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2018/08/remitence-fighter.jpg” img=”http://beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2018/08/remitence-fighter.jpg” caption=” শিক্ষামন্ত্রীর জবাব মনোযোগ দিয়ে শুনছেন প্রবাসীরা “]

বিয়ানীবাজার উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল আহাদ সাজেল বলেন, ‘প্রবাসীদের ভাইদের প্রশ্নগুলো মাথিউরা , তিলপাড়া ও কুড়ারবাজারবাসীর ন্যায্য দাবি। শিক্ষামন্ত্রী সুকৌশলে প্রবাসীদের কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন, আবার কিছু প্রশ্নের উত্তরও এড়িয়ে গেছেন। যদি অনিতিবিলম্বে আমাদের দাবি তথা এ তিন ইউনিয়নবাসীর দাবি পূরণ না হয় তাহলে আমরা সর্বস্তরের জনগণকে সাথে নিয়ে কঠোর কর্মসূচী গ্রহণ করতে বাধ হবো।’

উল্লেখ্য, গত ১৪ আগস্ট যুক্তরাজ্যের ব্লু মুন মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত মাথিউরা ইউনিয়নবাসীর আলোচনা সভায় বক্তারা দাবি জানানোর পাশাপাশি পরিবেশ ও প্রতিবেশ ধ্বংসকারিদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহবান জানিয়েছেন। একই সাথে প্রবাসীরা বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের নাম প্রমথ নাথ দাস‘র নামে নামকরণ, তাঁর পরিবারের সদস্যদের নামে কলেজের বিভিন্ন ভবনের নামকরণ এবং জিসি দেব, মনু মিয়া, মুন্সী ইরফান আলী, আকাদ্দস সিরাজুল ইসলাম, শহীদ কমর উদ্দিনসহ বিয়ানীবাজারের সূর্য সন্তানদের নামে স্থাপনা নামকরণ করার দাবি জানান। এছাড়াও গতকাল বিকেলে মাথিউরা ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিতব্য জরুরী ও জনগুরুত্বপূর্ণ সভায় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মুরব্বিরা আলোচনা করে বেশ কিছু সমস্যা চিহ্নিত করেন। সভায় এ সব সমস্যার আশু সমাধানে শিক্ষামন্ত্রীর সাথে আলোচনা করে করণীয় নির্ধারণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।