বড়লেখা উপজেলায় পর্যটকবাহী মিনিবাস ও সিএনজি চালিত আটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে আটোরিকশা চালক রাজু আহমদ (২১) নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অটোরিকশার আরও ৫ জন যাত্রী।

আহতরা হচ্ছেন- নিহত রাজুর বন্ধু জুড়ী উপজেলার কালিনগর গ্রামের জাকির হোসেন (১৯), এনাম উদ্দিন (২৫), শাকিল আহমদ (১৭), সাইদুল ইসলাম (১৬) ও সামছুল ইসলাম (১৬)। নিহত রাজু জুড়ী উপজেলার কালিনগর গ্রামের নেছার আলীর ছেলে।

শনিবার বিকেল ৫টার দিকে কাঠালতলী-মাধবকুন্ড সড়কে এ ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার এবং ঘাতক মিনিবাসটি আটক করেছে।

পুলিশ, এলাকাবাসী ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, পবিত্র ঈদ উপলক্ষে শনিবার দুপুরে আটোরিকশা চালক রাজু আহমদ ও তাঁর বন্ধুরা মিলে সিএনজি চালিত অটোরিকশাযোগে মাধবকুন্ড জলপ্রপাতে বেড়াতে যান। সেখান থেকে বিকেল ৫টার দিকে ফেরার পথে কাঠালতলী-মাধবকুন্ড সড়কের ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদ মিয়ার বাড়ির সামনে সিলেটের জৈন্তাপুর থেকে আসা পর্যটকবাহী মিনিবাসের সাথে অটোরিকশাটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।  এতে আটোরিকশা চালক রাজু আহমদসহ ৬ জনই গুরুতর আহত হন। রাজু আহমদ ও জাকির হোসেনকে বড়লেখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাজুকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত অপর চারজনকে জুড়ী আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বড়লেখা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অমিতাভ দাস তালুকদার শনিবার রাত সাড়ে আটটায় বলেন, নিহত রাজু আহমদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ মিনিবাসটি আটক করলেও চালক পালিয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।