বড়লেখা উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের পাল্লার তল চা বাগানে একটি গাছে এক সাথে দড়িতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে প্রেমিক যুগল। আজ রবিবার ভোর রাতে তারা আত্মহত্যা করেছে বলে স্থানীয়রা ধারণা করছেন। এ ঘটনায় উপজেলা জুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

সকাল ১১ টার দিকে স্থানীয়রা চা বাগান কর্মচারী ও কয়েকজন এলাকাবাসী প্রথমে ঝুলন্ত এ যুগলের দেহ দেখতে পান। এ ঘটনাটি জানাজানি হলে আশপাশের এলাকার লোকজন ভীড় করেন। পরে স্থানীয় এলাকাবাসী বড়লেখা থানা পুলিশকে বিষয়টি অবগত করে। খবর পেয়ে বড়লেখা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে রওয়ানা হয়েছে।

এদিকে প্রেমিক যুগল কি কারণে আত্মহত্যা করেছে তার কারণ জানা যায়নি। তবে এলাকাবাসীর ধারণা, তাদের বিয়ে নিয়ে পারিবারিক অসম্মতি থাকায় দুইজন এক সাথে আত্মহত্যার পথে পা দিতে পারে।

প্রেমিক যুগলের পরিচয় সনাক্ত করেছে পুলিশ। এরা হচ্ছে পাল্লার তল চা বাগানের সুদাম ধার্মী দাসের মেয়ে হৈমন্তী ধার্মী দাস (১৭) ও একই বাগানের মিন্টু কেলীর ছেলে আকাশ কেলী (২০)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার (১৪ অক্টোবর) দিবাগত রাত ১টার দিকে এ দুজন নিখোঁজ হন। রাতে তাদের অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পাওয়া যায়নি। রবিবার ভোরের দিকে শ্রমিকরা ঘুম থেকে ওঠে দুজনের লাশ একটি গাছে ঝুলতে দেখেন।

খবর পেয়ে পুলিশ দুপুর ১টার দিকে লাশ দুটি উদ্ধার করে। সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে লাশ দুটি ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদরের হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ সহিদুর রহমান জানান, শনিবার দিনগত রাত ১টা থেকে ভোর ৬ টার মধ্যে এ ঘটনাটি ঘটে থাকতে পারে । রোববার সকাল ১০টার দিকে পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় দুজনের লাশ উদ্ধার করে। ধারণা কারা হচ্ছে, তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো।