মৌলভীবাজারের বড়লেখায় এক রাতে ১৩ দোকানে চুরির ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা চত্ত্বর প্রাঙ্গণ ও পানিধার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

তবে দোকানগুলোর সামনের সাটারের তালা ভেঙে চোরেরা ভেতরে প্রবেশ করলেও ক্যাশবাক্সের খুচরো টাকা ছাড়া তেমন কোন মালামাল নেয়নি বলে দোকান মালিকরা জানিয়েছেন।
শুক্রবার সকালে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত দুইটার পর উপজেলা চত্ত্বর প্রাঙ্গণের অর্ণব ফটোস্ট্যাট এন্ড স্টেশনার্স, সাইফুর কম্পিউটার, ইত্যাদি স্টোর, সুরচি এন্টারপ্রাইজ, হাসান ভেরাইটিজ স্টোর, সেজুতি ফার্মেসী, জাফর ফার্মেসী, আফিফ কার হাউজ ও ফাবিহা কম্পিউটারের দোকানের সামনের সাটারের তালা ভেঙে চোরেরা ভেতরে প্রবেশ করে। এছাড়া প্রায় ১শ’ গজ অদূরে পানিধার বাজারের তোফায়েল ডিপার্টমেন্টাল স্টোর, কারওয়াস, লিলি ফুড ও কয়েছ ভেরাইটিজ স্টোরে চুরির ঘটনা ঘটেছে।

ইত্যাদি স্টোরের সত্ত্বাধিকারী সাইফুর রহমান ও অর্ণব ফটোস্ট্যাট এন্ড স্টেশনার্সের স্বত্ত্বাধিকারী রুপম দাস জানান, চোরেরা প্রত্যেকটা দোকানে একই স্টাইলে তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করেছে। ক্যাশ বাক্সের খুচরো টাকা ছাড়া চোর অন্য কোনো মালামাল নেয়নি। মেইন রোডের পাশের দোকানগুলোতে এধরনের দুঃসাহসি চুরির ঘটনায় ব্যবসায়ি মহলে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বড়লেখা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) ফরিদ উদ্দিন বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে চোর সনাক্তের চেষ্টা চলছে।