বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের ১২৪৫ শিক্ষার্থীর মধ্যে এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে ঐশ্বর্য্য সাহা উর্মি ও জেমিমা আক্তার। এসএসসি পরীক্ষার পর এইচএসসিতে এদুই শিক্ষার্থী কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখেন।

বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজে ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা বরাবর ভাল ফলাফল করে। এ ধারাবাহিকতা এবার ধরে রাখলেন বিজ্ঞান বিভাগের উর্মি ও মানবিক বিভাগের জেমিমা আক্তার। উর্মি বাবার চাকরির সুবাদে পরিবারের সাথে দুবাগ ইউনিয়নে বসবাস করেন। জেমিমার বাড়ি পৌরসভার সুপাতলা গ্রামে।

খলিল চৌধুরী আদর্শ বিদ্যানিকেতন থেকে জেমিমা আক্তার এসএসসি পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে এ প্লাস অর্জন করে। দুবাগ স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় এ প্লাস অর্জন করেন ঐশ্বর্য্য সাহা উর্মি। উর্মি ২০১৫ সালে বাংলাদেশ স্টাডিজ ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয় প্রতিযোগিতায় (কলেজ) দেশ সেরা হয়ে বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের জন্য বিরল গৌরব অর্জন করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে দেশ সেরার পুরস্কার গ্রহণ করেন বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের এ কৃতি শিক্ষার্থী।

বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ দ্বারকেশ চন্দ্র নাথ বলেন, উর্মি ও জেমিমার পথ অন্য শিক্ষার্থীদের অনুস্মরণ করা উচিত। তারা আমাদের এ বিদ্যাপীঠের শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থী হিসাবে কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হয়েছে। আগামীতে এ ধারাবাহিকতা শিক্ষা জীবনে তারা ধরে রাখবে।

জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী ঐশ্বর্য্য সাহা উর্মি শিক্ষক দম্পতির কন্যা। তার পিতা দুবাগ স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক উপেন্দ্র মোহন সাহা এবং মাতা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা স্বপ্না সাহা।

জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী জেমিমা আক্তার পৌরসভার সুপাতলা গ্রামের ব্যবসায়ী পিতা জামাল উদ্দিন ও গৃহিনী লুৎফা বেগমের কন্যা।