বিয়ানীবাজার নিউজ ২৪। ২২ মার্চ ২০১৭।

বিয়ানীবাজার পৌরসভা নির্বাচনের আর মাত্র ৩৩ দিন। পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে ২১ মেয়র প্রার্থী রয়েছেন সম্ভাব্য তালিকায়। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ১৬ প্রার্থীর বিপরীতে বিএনপি’র একক প্রার্থী। পৌর প্রশাসক তফজ্জুল হোসেনসহ বেশ কয়েকজন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী রয়েছেন নির্বাচনি মাঠে।

মেয়র প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে আওয়ামী লীগের ১৬জন রয়েছেন। গত ২০ মার্চ উপজেলা আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ১৬ প্রার্থীর নাম জেলা আওয়ামী লীগের কাছে ন্যাস্ত করেছে। শেষ পর্যন্ত জেলা আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর পরিদি ছোট করে কেন্দ্র পাঠাতে পারবে কি না সেটাই এখন দেখার বিষয়।

এ দিকে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী জটের দারুণ সুবিধা নিচ্ছে বিএনপি। তাদের একক প্রার্থী পৌরসভা বিএনপি’র সভাপতি আবু নাসের পিন্টু। মধ্যখানে পৌরসভা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান রুমেলের মেয়র প্রার্থীর হওয়ার কথা শোনা গেলেও শেষ পর্যন্ত তিনি মেয়র প্রার্থী হচ্ছে না। ফলে বিএনপি সহকারি রিটানিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়ন পত্র জমার দেয়ার আগেই নির্বাচনের কাজ শুরু করে দিয়েছে।

উপজেলা বিএনপি’র এক দায়িত্বশীল নেতা বলেন, চূড়ান্ত মেয়র প্রার্থীদের তালিকা সম্পন্ন হয়ে গেলে আমাদের কর্মপরিকল্পনা বিস্তৃত করবো। আপাতত ঘরোয়া ও এলাকাভিত্তিক বৈঠকসহ দলীয় প্রার্থীর মাঠের অবস্থান যাচাই করা হচ্ছে। শক্তি ও দুর্বল দিকগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সে অনুযায়ী দায়িত্বশীলরা কাজ শুরু করে দিয়েছেন।

উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি সজমুল হোসেন পুতুল বলেন, পরিকল্পনা করতে হবে নির্বাচন নিয়ে এটাই স্বাভাবিক। এসব পরিকল্পনা চূড়ান্ত রূপ পাবে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী ঘোষিত হওয়ার পর। তবে আমরা বাতাসে ছড়ানো আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে সম্ভাব্য ধরে কাজ করছি। কোন ঝামেলা না থাকায় আমাদের কাজ করতে বরং সুবিধা হচ্ছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান খান বলেন, আওয়ামী লীগ বৃহৎ দল। এখানে যোগ্য মানুষের সংখ্যা অন্য যেকোন দলের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি। মেয়র প্রার্থী হওয়া ১৬ জনের সম্ভাবনা কোন অংশে কম নয় জানিয়ে তিনি বলেন, কেন্দ্র আওয়ামী লীগ নৌকার মাঝি যাকে মনোনীত করবে আমরা তাকে নিয়ে কাজ করবো।