বিয়ানীবাজার পৌরসভার প্রথম নির্বাচন গত ২৫ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচনে পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের ফলাফল বাতিল হওয়ায় আগামী ৮ মে পুর্নঃনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। একই দিন মেহেরপুর পৌরসভার ২টি কেন্দ্রে পুর্নঃনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন কমিশনের উপ সচিব (নির্বাচন পরিচালনা-২) মো: নুরুজ্জামান তালুকদার পুর্নঃনির্বাচনে এ অফিস আদেশে স্বাক্ষর করেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মনির হোসেন বিয়ানীবাজার নিউজ২৪কে বলেন, নির্বাচন কমিশন থেকে ৮মে নির্বাচন অনুষ্ঠানের নিদের্শনা আমাদের কাছে এসে পৌঁছেছে।

বিয়ানীবাজার পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড কসবা আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ২৫ এপ্রিল ভোট গ্রহণ শেষে প্রথমে ফলাফল ঘোষণা স্থগিত ও পরে ঐ কেন্দ্রের ভোট বাতিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। প্রতিদ্বন্দ্বি দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও জাল ভোট প্রদানের অভিযোগে কমিশন এ সিদ্ধান্ত নেয়। ফলে ৩নং ওয়ার্ড অন্য ৮টি ওয়ার্ডের বেসরকারি ফলাফল ভোটের রাতেই প্রকাশ হয়। প্রকাশিত ফলাফলে ৮টি ওয়ার্ডের ৯টি কেন্দ্রে মেয়র পদে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী আবু নাসের পিন্টু ১৫৪ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ৩৬২৫টি, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুস শুকুর এর প্রাপ্ত ভোট ৩৪৭১টি। এছাড়া ৩য় স্থানে থাকা স্বতন্ত্র প্রার্থী তফজ্জুল হোসেনের জগ প্রতীকে প্রাপ্ত ভোট ৩৩০৪টি। বাতিল হওয়া ৩নং ওয়ার্ডে মোট ভোট ৩৩৮৮টি। ২৫ তারিখ অনুষ্ঠিত নির্বাচনে কাস্টিং ভোটের সংখ্যা ছিল ২৫১০টি যা পরে বাতিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এই ওয়ার্ড নৌকা প্রতীক অধ্যুষিত, তাই বিশ্লেষকদের ধারণা আসন্ন ৮ তারিখের নির্বাচনে ৩নং ওয়ার্ডের ভোটে নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করবে আওয়ামী লীগের নৌকা। তাই আপাতত বিএনপির প্রার্থী এগিয়ে থাকলেও শেষ পর্যন্ত বিয়ানীবাজার পৌরসভা প্রথম নির্বাচিত মেয়র হতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী আব্দুস শুকুর।

এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৯জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হচ্ছেন, সাহাব উদ্দিন পাঞ্জাবি প্রতীক, আতিক উদ্দিন গাজর প্রতীক, ইসলাম উদ্দিন আহমদ পানির বোতল প্রতীক, কবির আহমদ ডালিম প্রতীj, মছমন উদ্দিন আহমদ উটপাখি প্রতীক, মানিক আহমদ ব্রিজ প্রতীক, মাহমুদ সামী টেবিল ল্যাম্প প্রতীক, মোহাম্মদ আব্বাছ উদ্দিন টিউব লাইট প্রতীক ও মোঃ লোকমান হোসেন ব্ল্যাক বোর্ড প্রতীক।

এদিকে ১, ২ ও ৩নং সাধারণ ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত সংরক্ষিত (মহিলা) ১নং ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন মরিয়াম বেগম অটোরিক্সা প্রতীক ও রাবেয়া বেগম আনারস প্রতীক। সংরক্ষিত উক্ত ওয়ার্ডের ১ ও ২নং কেন্দ্রের প্রকাশিত বেসরকারি ফলাফলে ২৬৮০ ভোট পেয়ে অটোরিক্সা প্রতীকের মরিয়ম বেগম সুস্পষ্ট ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী আনারস প্রতীকের রাবেয়া বেগম ২টি কেন্দ্রে ৩৫৫টি ভোট লাভ করেছেন। এ অবস্থায় বলা যায় ৩নং ওয়াার্ডের ভোট গ্রহণ শেষে সংরক্ষিত ১নং ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলর হিসেবে অটোরিক্সা প্রতীকের মরিয়ম বেগমের জয়লাভ এখন সময়ের ব্যাপার।