সিলেটের জকিগঞ্জ থেকে একাধিক ডাকাতি ও মাদক মামলার আসামী জাহেদ আহমদ (২৮) কে গ্রেফতার করেছে জকিগঞ্জ থানা পুলিশ। আটক জাহেদ আহমদ উরফে জিহাদ উদ্দিন জকিগঞ্জ উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের ঘেচুয়া গ্রামের মৃত আজমল আলী উরফে আজুমুল আলীর ছেলে।

সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় তার নিজ গ্রাম ঘেচুয়া সাকিনে আত্মগোপনে থাকাবস্থায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার নিকট থেকে উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের ছয়ঘরি গ্রামে প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় লুন্ঠিত মোবাইল উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানায়, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জকিগঞ্জ সার্কেল) জাকির হোসাইন এর তত্বাবধানে ও জকিগঞ্জ থানার ওসি মোঃ আবুল কাসেম এর দিক নির্দেশনায় এবং ওসি (তদন্ত) সুমন চন্দ্র সরকারের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করেন এসআই মোহন রায় ও এসআই তন্ময় সহ একদল পুলিশ।

জানা যায়, গত ৪ জুন জকিগঞ্জ উপজেলার ৬নং সুলতানপুর ইউনিয়নের ছয়ঘরী গ্রামে প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পরদিন মনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে জকিগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করলে গত ১৮ জুন গভীর রাতে আন্ত:জেলা ডাকাতদলের ৩ সদস্য সহ মোট ৪ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আসামীদের আদালতে প্রদত্ত্ব ১৬৪ ধারার জবাবন্দি অনুযায়ী জাহেদ আহমদকে গ্রেফতার করা হয়।
এদিকে জকিগঞ্জের আলোচিত ডাকাতির ঘটনায় লুন্ঠিত স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোন ও মালামাল সহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ৪ সদস্যকে আটক করায় এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে। স্থানীয় লোকজন পুলিশের এমন তৎপরতায় সন্তুষ প্রকাশ করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জকিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল কাসেম বলেন, ডাকাতির ঘটনায় গত ১৮ জুন আটক ৩ জনকে আদালতে নেয়া হলে তাদের দেয়া ১৬৪ ধারার জবানবন্দি অনুযায়ী পুলিশ ডাকাত জাহেদ আহমদকে গ্রেফতার করেছে। এসময় তার নিকট থেকে লুন্ঠিত মোবাইল ফোন উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি আরও জানান, তার বিরুদ্ধে এসএমপির কোতয়ালী, জালালাবাদ, সিলেটের জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার থানায় মোট ৬টি ডাকাতি ও মাদকের মামলা রয়েছে।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

বিয়ানীবাজারের হাজী মৎস্য খামারে সাফল্যের হাসি