বিশেষ প্রতিনিধি। ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭।

বিয়ানীবাজার-সিলেট অভ্যন্তরীণ মহাসড়ক ব্যবসায়ীদের রাখা মালপত্রে সংকুচিত হয়ে গেছে। বিয়ানীবাজার পৌর শহর ও শহরতলি এলাকায় রাখা এসব জিনিসপত্রের কারণে যান এবং সাধারণ মানুষ ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন। সড়কের নিরাপদ চলাচলের স্বার্থে এসব সরানোর কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর কিংবা উপজেলা প্রশাসন।

অভ্যন্তরীণ এ মহাসড়কের প্রায় ২০টি অংশে দীর্ঘদিন থেকে ইট, বালু, পাথর, কাঠ, হার্ডওয়্যার, প্লাস্টিক, লোহা, ইস্পাত এবং ভাঙ্গাড়ি ব্যবসার জিনিসপত্র রাখা হচ্ছে। শহরের মূল সড়ক, মাঝ বাজার, কলেজ রোড মোড়, মোকাম মসজিদ পয়েন্ট, উত্তর বাজার, দক্ষিণ বাজার, শহরতলির সুপাতলা, নিমতলা, উপজেলা হাসপাতাল এলাকা, শহীদ টিলা, খাসা ও নয়াবাজার এলাকায় অর্ধশতাধিক ব্যবসায়ী তাদের জিনিসপত্র রাখার কারণে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছেন।

[image link=”http://138.197.71.33/wp-content/uploads/2017/02/4-09-02-17.png” img=”http://138.197.71.33/wp-content/uploads/2017/02/4-09-02-17.png” caption=” পৌরশহরের মোকাম মসজিদ রোড পয়েন্ট এলাকায় সবজি বাজার “]

দক্ষিণ বাজার থেকে সুপাতলা এলাকার সড়কের গ্যাসফিল্ড মোড়, মূল সড়ক এবং উত্তর বাজারের থানা এলাকার সামনে থেকে নয়াবাজার পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের জিনিসপত্র সড়কের খালি অংশ, ফুটপাত এমনকি মূল সড়ক পর্যন্ত রাখা হয়েছে। বিশেষ করে নিমতলা, শহীদ টিলা এবং উপজেলা হাসপাতাল এলাকায় এ সব রাখায় মূল সড়কের প্রশস্ততা কয়েক ফুটে নেমে এসেছে। খাসা এলাকায় যাত্রীছাউনির তিন পাশ ঘিরে রাখা হয়েছে এসব মালপত্র। যার ফলে সড়ক ব্যবহারকারীরা এ ছাউনি ব্যবহার করতে পারছেন না।

সিলেট সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ মনিরুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে মাসিক সমন্বয় সভায় আলোচনা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় শিগগিরই সওজের জায়গা থেকে সব ধরনের অবৈধ স্থাপনা ও ব্যবসায়ীদের মালপত্র উচ্ছেদ করতে অভিযান চালানো হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মু. আসাদুজ্জামান বলেন, বিষয়টি আমাদের নজরে রয়েছে। শিগগিরই পুরো রাস্তা পরিষ্কার করতে অভিযান পরিচালনা করা হবে।