নিয়োগবিধি সংশোধন করে বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহ-স্বাস্থ্য পরিদর্শক এবং স্বাস্থ্য সহকারীরা কর্মবিরতি পালন করেছেন।

শনিবার (২৮ নভেম্বর) সকালে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত কর্মবিরতি সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন দাবি বাস্তবায়ন কেন্দ্রীয় পরিষদ সিলেট বিভাগীয় সমন্বয়ক শরফ উদ্দিন, সিলেট জেলার যুগ্ম সদস্য সচীব হোসেন আহমদ , সিলেট জেলা হেল্থ এ্যাসিসটেন্ট এসোসিয়েশনের প্রচার সম্পাদক আশরাফুল হক, উপজেলা দাবি বাস্তবায়ন পরিষদের আহবায়ক নুরুল আলম , স্বাস্থ্য পরিদর্শক আবু বকর সিদ্দিক, সহঃ স্বাস্থ্য পরিদর্শক   নব কিশোর, অজয় কুমার দাস, সুন্দরী মোহন, থিমির হরণ চক্রবর্তী, বদরুল ইসলাম, আব্দুল খালিক এবং স্বাস্থ্য সহকারী আব্দুল মালেক, নূর উদ্দিন, আ হ ম সাইফুল্লাহ, সুজন কুমার চন্দ, সেলিনা বেগম, সেলিনা আক্তার, তুফায়েল আহমদ, আব্দুল কাদির, জুমেরা বেগম, ফখরুল ইসলাম, দেবাশীষ চক্রবর্তী, আবু জাফর সিদ্দিক, লুৎফুর রহমান ও সসীম সরকার।

বক্তারা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৮সালের ৬ই ডিসেম্বর স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহ স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীদের এক মহা সমাবেশে আমাদের বেতন বৈষম্য নিরসনের ঘোষনা দিয়েছিলেন। ২০১৮ সালের ২ জানুয়ারি তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রী আমাদের দাবি মেনে নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য একটি কমিটি গঠন করে দেন। এছাড়া চলতি বছরের ২০শে ফেব্রুয়ারি আমরা হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইন বর্জন করলে বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্য সচিব ও মহাপরিচালক মহোদয় আমাদের দাবিসমূহ মেনে নিয়ে লিখিত সমঝোতাপত্রে স্বাক্ষর করেন।

দাবি সমূহ হচ্ছে- স্বাস্থ্য পরিদর্শক ১১তম গ্রেড, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ১২তম গ্রেড ও স্বাস্থ্য সহকারী ১৩তম গ্রেডে উন্নতিকরণ। এসকল দাবি বাস্তবায়নের লক্ষে সারাদেশে ১ লক্ষ ২০ হাজার অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রে টিকাদান কার্যক্রম থেকে বিরত থাকছি। ৫ ডিসেম্বর শুরু হতে যাওয়া হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইন কার্যক্রম থেকেও বিরত থাকবো। দাবিপূরনের প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি অব্যাহত থাকবে।