গত রবিবার থেকে সারা দেশে ট্রাফিক সপ্তাহ পালিত হলেও শেষ সময়ে এসে বিয়ানীবাজারে পালিত হচ্ছে ট্রাফিক সপ্তাহ। আজ শুক্রবার উপজেলার তিন পয়েন্টে পুলিশ সড়কে চলাচলকারি যানবাহনের কাগজ পরীক্ষা করছে। অভিযোগ রয়েছে অনটেস্ট ও মৌলভীবাজার জেলার রেজিষ্ট্রেশনকৃত অটোরিক্সাকে ছাড়া দিয়ে পুলিশ শুধু মোটর সাইকেলের উপর কড়াকড়ি আরোপ করছে।

উপজেলার সিলেট-বিয়ানীবাজার সড়কের চারখাই ও সুপাতলা এবং বিয়ানীবাজার-চন্দরপুর সড়কের নবাং সেতৃ এলাকায় ট্রাফিক পুলিশ গাড়ি আটকিয়ে কাগজ পরীক্ষা করছে। আজ শুক্রবার আজ দুপুর পর্যন্ত অনটেস্ট ও অনিবন্ধিত ১৫টির মতো মোটর সাইকেলের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ।

বিয়ানীবাজার উপজেলাজুড়ে কতগুলো নিবন্ধনহীন সিএনজি অটোরিকশা রয়েছে তার সঠিক হিসেব নেই এখানকার ট্রাফিকের কাছে। একইভাবে অজানা নিবন্ধনহীন মোটর সাইকেলেরও সংখ্যাও। সিএনজি ও মোটর সাইকেলগুলোর অধিকাংশই আবার অবৈধ বলে অভিযোগ রয়েছে।

নবাং সেতু এলাকায় আটকে পড়া মোটর সাইকেল মালিক শাহিদুল জামাল বলেন, আমার গাড়ির কাগজ না থাকায় আটক করা হলেও অনটেস্ট সিএনজিকে আটক করছেন না দায়িত্বরত পুলিশ অফিসার। এ বিষয়টি তার কাছে জানতে চাইলে তিনি কোন সদুত্তোর দিতে পারেননি। একই অভিযোগ করেন সুপাতলা এলাকায় আটকে পড়া আব্দুর রহমান। তিনি বলেন, আটক হওয়া সবগুলো যানই মোটর সাইকেল। অনটেস্ট সিএনজি চললেও পুলিশ দেখেও না দেখার ভান করছে।

বিয়ানীবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) জাহিদুল ইসলাম জানান, ‘এখন পর্যন্ত উপজেলাজুড়ে ১৫টি গাড়ি আটক করা হয়েছে। সবগুলোই নিবন্ধনহীন থাকায় মামলা করা হয়েছে। তবে গাড়িগুলো কি সেটা বিকাল না হওয়া পর্যন্ত বলতে পারছি না। তিনি বলেন, শুধু মোটর সাইকেল না, নিবন্ধনহীন সব ধরনের যানের বিরুদ্ধেই আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি।’