শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, শিক্ষায় আধুনিকায়ন খুবই প্রয়োজন। কিন্তু এক্ষেত্রে বড় বাধা আমাদের অভিভাবকগণ। তারা কোনভাবে শিক্ষার বৈপ্লবিক পরিবর্তন মেনে নিতে পারেন না। পূর্বে কাঠামোতেই তারা থাকতে চান। মৌখিক ও গুণগত পরিবর্তন না ঘটলে কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন সম্ভব নয় উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রযুক্তির আওতায় নিয়ে আসা হবে। প্রযুক্তি নির্ভর প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের পাশাপাশি অবকাঠানো উন্নয়ন করা হচ্ছে। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জাতি সংঘের অধিনে থাকা ত্রিশ দেশের জনসংখ্যার চেয়ে আমাদের শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি। ৪ কোটি ৪৪ লাখের বেশি শিক্ষার্থীদের সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে উপযুক্ত করে গড়ে তুলতে হবে।

গতকাল বুধবার দুপুরে বিয়ানীবাজার পিএইচজি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় সরকারিকরণের আনুষ্ঠানিক ঘোষণায় স্কুল প্রাঙ্গনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে এবং শিক্ষক বিপ্লব চক্রবর্তীর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেট শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক একে এম গোলাম কিবরীয়া তাপাদার, বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক দ্বারকেশ চন্দ্র নাথ, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান খান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল হাসিব মনিয়া, শিক্ষামন্ত্রীর এপিএস মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল ও পৌরসভার মেয়র আব্দুস শুকুর।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, রুশ বিপ্লবের সময় পিএইচজি স্কুল স্থাপন করা হয়।  ১৯১৭ সালে প্রতিষ্ঠিত এ বিদ্যালয় এ বছর শতবর্ষ পূর্ণ করেছে। বিদ্যালয়ের শতবর্ষে সরকারিকরণ হয়েছে- আপনাদের জন্য এটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার। তিনি বলেন, আমাদের সন্তানেরা আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশ সেবায় আত্মনিয়োগ করবে।