বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের শ্রেণিকক্ষে গুলিতে নিহত খালেদ আহমদ লিটু হত্যা মামলার আসামিদের অতীত কর্মকাণ্ডের তদন্ত করছে পুলিশ। একই সঙ্গে পলাতক আসামিসহ স্থানীয় ছাত্রলীগের পাভেল গ্রুপের শীর্ষ কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে অভিযান চালানো হচ্ছে। পুলিশের ধারণা, তাদের আটক করতে পারলে হত্যাকারী ও হত্যার কাজে ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার করা সহজ হবে।

পুলিশ জানায়, গ্রেফতার চার আসামিসহ পলাতক তিন আসামির অতীত কর্মকাণ্ড তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে তাদের যুক্ত থাকার প্রমাণ পেয়েছে। এ ছাড়া আসামিদের কেউ কেউ ছাত্রলীগে অনুপ্রেবশকারী বলে সন্দেহ করছে পুলিশ। তদন্ত সংশ্লিষ্ট এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, মোটরসাইকেল চুরিসহ আসামিদের দু-একজন বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে। তাদের মধ্যে একজন বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের মাঝামাঝি সময়ে ছাত্রশিবির থেকে ছাত্রলীগে যোগ দেয়। আসামিদের দু’জন স্থানীয় ছাত্রলীগের অন্য গ্রুপ থেকে বছর দুয়েক আগে পাভেল গ্রুপের সঙ্গে যুক্ত হয়।

এদিকে শ্রেণিকক্ষে গুলিতে লিটু নিহত হওয়ার পর কলেজ প্রশাসন কলেজ বন্ধ ঘোষণা এবং অভ্যন্তরীণ সব পরীক্ষা স্থগিত করে। ঘটনার চারদিন পর বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজ আগামীকাল ২৩ জুলাই খুলছে। কলেজের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে গত ১৭ জুলাই থেকে ক্যাম্পাসে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। কলেজের সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে কলেজ কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তি ও পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করে। এ বৈঠকে কলেজের সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত হয়। কলেজ ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের প্রবেশ বন্ধ এবং কলেজে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বিয়ানীবাজার থানার ওসি চন্দন কুমার চক্রবর্তী বলেন, হত্যা মামলায় গ্রেফতার ও পলাতক আসামিদের বিষয়ে আমরা খোঁজ নিচ্ছি। তাদের অতীত রেকর্ড নিয়ে তদন্ত চলছে। এসব তদন্তে অনেক বিষয়ে পুলিশ অবহিত হয়েছে। আসামিদের কেউ কেউ বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে যুক্ত এবং দু-একজন অন্য ছাত্র সংগঠন থেকে এসে ছাত্রলীগ করছে। আমরা হত্যাকারী ও হত্যার কাজে ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার করতে পলাতক আসামিসহ কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতার খোঁজ করছি।

বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক দ্বারকেশ চন্দ্র নাথ বলেন, চারদিন বন্ধ থাকার পর আজ কলেজ খুলছে। কলেজের অপরাধপ্রবণতা রোধ ও নিরাপত্তা বাড়াতে সিসি ক্যামেরা স্থাপনে সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

গত ১৭ জুলাই দুপুরে খালেদ আহমদ লিটুর গুলিবিদ্ধ লাশ বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের একটি শ্রেণিকক্ষ থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। ওই দিন রাতে লিটুর বাবা খলিলুর রহমান বাদী হয়ে উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা পাভেল গ্রুপের ছয় নেতাকর্মী ও পল্লব গ্রুপের একজনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাতপরিচয় আরও পাঁচজনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন।