বিয়ানীবাজার উপজেলার বৈরাগীবাজার-কুড়ারবাজার রাস্তায় সংস্কার কাজে ধীরগতি থাকায় বিগত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে এ রাস্তাটি চলাচলের অনুযোগী হয়ে পড়েছে। বৃষ্টিতে ‘হাঁটু কাদা’ এ বেহাল রাস্তায় ধানের চারা রোপণ করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন স্থানীয় কয়েকজন যুবক। গত শনিবার (১৫ জুন) দ্রুত সংস্কার কাজ শেষ করার দাবিতে রাস্তায় ধানের চারা রোপণ করে ব্যতিক্রমী এ প্রতিবাদ জানায় তারা।

স্থানীয়সূত্রে জানা গেছে, বৈরাগীবাজার থেকে কুড়ারবাজার রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থায় পড়ে ছিল। ছয় মাস পূর্বে এ সড়কটিতে সংস্কার কাজ শুরু হয়। চলতি জুন মাসে এ রাস্তার সংস্কার কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। এ রাস্তার গড়বন্দ-লোলারপার ব্রিজের সামনে ড্রেন নির্মানের জন্য গত ২ মাস পূর্বে রাস্তার মাটি খুড়ে রেখে দেয় ঠিকাদারি। গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টির কারণে ওই রাস্তাইয় কাদা-পানি একাকার হয়ে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। ফলে রাস্তাটি দিয়ে যান ও জনসাধারণকে চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানানোর পরও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এ জন্য গত শনিবার দ্রুত সংস্কার কাজ শেষে করে রাস্তাটি ব্যবহার উপযোগী করার দাবিতে ধানের চারা রোপণ করে প্রতিবাদ জানান স্থানীয় বাসিন্দারা।

স্থানীয়রা অভিযোগ জানান, সিডিউল অনুযায়ী কাজ করছে না রাস্তাটির সংস্কার কাজের দায়িতপ্রাপ্ত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। এ নিয়ে প্রায়ই স্থানীয়দের সাথে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজনদের কথা কাটাকাটি হয়। একই সঙ্গে ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলার সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনে কুরারবাজারবাসীর ভরসা ওই রাস্তাটি। তাই ক্ষুব্ধ হয়ে রাস্তায় ধানের চারা রোপণ করা হয়েছে।

কুড়ারবাজার ইউপি সদস্য আলী আহমদ জানান, এ রাস্তার গড়বন্দ-লোলারপার ব্রিজের সামনের ড্রেন নির্মানের জন্য রাস্তার পাশে খুড়ে রাখা হয়েছে। বিগত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে ড্রেনের মাটিগুলো রাস্তায় ছড়িয়ে কাদা-পানিতে একাকার হয়ে গেছে। তানা বৃষ্টি ও ঈদের ছুটি থাকায় সংস্কার কাজ শুরু হতে বিলম্ব হচ্ছে।

কুড়ারবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এএফএম আবু তাহের বলেন, টানা বৃষ্টিতে রাস্তাটির অবস্থা নাজুক থাকায় যান ও মানুষের চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। আমি টিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করে দ্রুত কাজ শেষ করার তাগিদ দিয়েছি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দ্রুত কাজ করে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছে।