ডাঃ খায়রুল বাশার রোমান। বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন মেডিকেল অফিসার। করোনাকালীন সময়ে দায়িত্ব পালন করেছেন সামনের সারির যোদ্ধা হিসেবে। চলমান করোনার ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রমে সাধারণ মানুষদের উৎসাহিত করতে নিয়েছেন এক অনন্য উদ্যোগ। নিজ এলাকা উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের জলঢুপ গ্রামের সুশীল যুবসমাজকে সাথে নিয়ে শুরু করেছেন করোনার নিবন্ধন কার্যক্রম সহযোগিতা ক্যাম্পইন। গত এক সপ্তাহ ধরে চলমান এই ক্যাম্পেইনের আনুষ্ঠানিকতা শুক্রবার সম্পন্ন হয়।

দিনব্যাপী চলমান এই ক্যাম্পেইনে এলাকার প্রায় ২ শতাধিক চল্লিশোর্ধ্ব নারী-পুরুষ নিবন্ধন করেন। একই সাথে ভ্যাকসিনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নিয়ে জনসাধারণের মধ্যে বিভিন্ন ভ্রান্ত ধারণা, প্রশ্নের জবাব ও প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করেন। তিনি জানান দায়বদ্ধতা থেকে এমন উদ্যোগ একই সাথে ব্যাপকহারে টিকা নিতে সাধারণ মানুষদের উৎসাহিত করা।

ক্যাম্পেইন চলাকালে উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন শিক্ষক আব্দুর রব, সাবেক ইউপি সদস্য লাউতা ও ৭নং ওয়ার্ডের সম্ভাব্য মেম্বার পদপ্রার্থী ছফর উদ্দিন শুকুর , জসিম উদ্দিন হিরা, আলতাফ হোসেন, আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগ বিয়ানীবাজার শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ আহমদ, রেজাউল ইসলাম ঝুনু, সমাজকর্মী জাবেদ আহমদ, আতাউর রহমান বজলু, ডালিম আহমদ, মিজানুর রহমান, শিক্ষক মিরশাদ আহমদ কিবরিয়া, ছাত্রনেতা ইব্রাহিমসহ আরো অনেকে।

এলাকার যুবসমাজের এমন উদ্যোগের প্রশংসা করে বিশিষ্ট মুরব্বি আব্দুর রব মাষ্টার বলেন, করোনার ভ্যাকসিন নিবন্ধনে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা সরকারের লক্ষ্য অর্জনে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। করোনা মহামারী থেকে রক্ষায় তিনি নিজে ভ্যাকসিন নিয়েছেম অন্যদেরও উৎসাহিত করতে উপস্থিত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

লাউতা ৭নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য ও ডাঃ খায়রুল বাশারের গর্বিত পিতা ছফর উদ্দিন শুকুর বলেন, আমার ছেলেসহ এলাকার যুবসমাজ যে প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন আমি তাদের সাধুবাদ জানাই। করোনার এই মহামারী কাটাতে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন জানিয়ে তিনি এলাকার সকল শ্রেণীপেশার মানুষদের ঐক্যবদ্ধ কাজ করার আহবান জানান।

চলমান এই নিবন্ধন সহায়তা প্রক্রিয়া চলমান থাকবে জানিয়ে প্রয়োজনে দায়িত্বশীলদের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

সিলেটের রশিদপুরে এনা ও লন্ডন এক্সপ্রেসের সংঘর্ষ, নিহত ৭