বিয়ানীবাজার উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত আন্তর্জাতিক তিন নদী সুরমা, কুশিয়ারা ও সুনাই নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে বিয়ানীবাজার উপজেলাসহ আশপাশ এলাকার নিম্নাঞ্চল এরই মধ্যে প্লাবিত হয়েছে। নদী থেকে প্রবল বেগে পআবাসিক এলাকায় পানি প্রবাহিত হচ্ছে।স্থানীয়রা এরই মধ্যে দ্বিতীয় দফা বন্যার শংকা প্রকাশ করেছেন। উজান থেকে নেমে আসা ঢল ও এবং গেত কয়েক দিনের ভারি বর্ষণে নদী ও শাখা নদী-খালে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার সুরমা নদীর পানি কানাইঘাটে বিপদ সীমার ৩১ সেন্টিমিটার, কুশিয়ারা নদীর পানি বিয়ানীবাজারের শেওলা পয়েন্টে ১৭ সেন্টিমিটার,  ও সুনাই নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

উজান থেকে নামা পাহাড়ী ঢল ও ভারতের বরাক নদীর পানি প্রবাহ বেড়ে যাওয়ায় সুরমা ও কুশিয়ারার পানি আরো বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। পানি বৃদ্ধির বিয়ানীবাজার উপজেলাসহ বড়লেখা ও গোলাপগঞ্জ উপজেরার বেশ কিছু এলাকার নিম্নাঞ্চল এরই তলিয়ে গেছে।

কুশিয়ারা নদীর ডাইক ভেঙ্গে মেওয়া ও খাড়াভরা এলাকায় পানি প্রবেশ করছে। ঝুঁকিতে রয়েছে নদীর কাকরদিয়া ও নেদাউদির ডাইক।  এছাড়া এ নদীর শাখা নদী ও খাল দিয়ে হাওর ও আবাসিক এলাকায় পানি প্রবেশ করায় স্থানীয়দের মধ্যে দ্বিতীয় দফা বন্যার শংকা দেখা দিয়েছে।

সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম বলেন, সিলেটের সুরমা ও কুশিয়ারার পানি ইতোমধ্যে তিন পয়েন্টে বিপদসীমা অতিক্রম করেছে। অন্যান্য পয়েন্টের পানিও বিপদ সীমার কাছাকাছি আছে।