বিয়ানীবাজারে তিন চাকার পরিবহণ শ্রমিকদের বিশৃংখলা রোধে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছে প্রশাসন। কোন অবস্থায়ই তাদের মধ্যে কোন মারামারি-ঐনক্য বরদাশত করা হবেনা। পৌরশহরসহ উপজেলায় নির্দিষ্ট আইনে সিএনজি অটোরিক্সা, মিশুক, পায়ে ও বিদ্যুতচালিত রিক্সাগুলো যথানিয়মে চলবে। যাত্রী বোঝাই তিনচাকার যান কোথাও আটকানো যাবেনা। কোথাও এমন পরিস্থিতি হলে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বুধবার দুপুরে উপজেলা প্রশাসনের হলরুমে তিনচাকার পরিবহণ শ্রমিকদের মধ্যে বিশৃংখলা নিরসনে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় উপজেলা প্রশাসন এমন সিদ্ধান্ত সকল পরিবহণ শ্রমিকদের জানিয়ে দেয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী মাহবুব।

সভায় উপস্থিত ছিলেন বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম পল্লব, পৌর মেয়র মো. আব্দুস শুকুর, অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হিল্লোল রায়, ভাইস চেয়ারম্যান জামাল হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান খান, পৌরসভার প্যানেল মেয়র-১ ছায়ফুল ইসলাম ঝুনু, কাউন্সিলর নাজিম উদ্দিন, ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের, প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক মিলাদ মো.জয়নুল ইসলাম, শ্রমিক নেতা হুমায়ুন কবির আকিল, ফয়েজ আহমদ হরুফ, আমান ফারুকী, আব্দুর রউফ সুমন, রুহুল আমীন প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, বিয়ানীবাজার পৌরশহরে সিএনজি অটোরিক্সা চালকদের একটি পক্ষ মিশুক চলাচলে আপত্তি জানায়। এ নিয়ে দু’পক্ষে সংঘর্ষ হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ নিয়ে কয়েকদফা সভা-বৈঠক করে একটি সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে পৌছে উপজেলা প্রশাসন। সভায় মেয়র আব্দুস শুকুর জানান, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন ও পৌরসভার অনুমোদিত মিশুক-রিক্সাগুলো যাত্রী নিয়ে গন্তব্যে যেতে পারলেও ফিরতে পথে যাত্রীর জন্য অপেক্ষা করা যাবেনা।