বিয়ানীবাজারে কৃষি যান্ত্রিকীকরণের দিক থেকে অনেকটা পিছিয়ে রয়েছে। কৃষি জমি চাষে ৯০ শতাংশ যন্ত্র ব্যবহূত হলেও শস্য লাগানো ও কর্তনে যন্ত্রপাতির ব্যবহার এখনো শুরু হয় নি। বিশেষ করে ধানের চারা রোপণ ও ধান কর্তন যন্ত্রের ব্যবহার না থাকায় কৃষকরা আর্থিক ক্ষতির মুখোমুখি হচ্ছেন। ধান উত্পাদনের খরচ কমিয়ে লাভজনক করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে ট্রান্সপ্লান্টার ও হার্ভেস্টার।

রবি মৌসুমে বোরো ধান রোপনের সময় অন্যান্য ফসল আবাদের কারণে কৃষিতে শ্রমিক সংকট পরিলক্ষিত হয়। আবার বোরো ধান কাটার সময় শিলাবৃষ্টি, ঝড় ও আগাম বন্যার কারণে এবং স্বল্প সময়ে সারা দেশের ধান কর্তনে কৃষি শ্রমিকের সংকট দেখা যায়।

বছরব্যাপী অন্যান্য ফসল আবাদে শ্রমিক সংকট তেমন পরিলক্ষিত না হলেও বোরো ধান লাগানো ও কাটার সময় শ্রমিক সংকটের অভাব পূরণে সরকারি ভর্তুকিতে কৃষিযন্ত্র প্রদান করা হচ্ছে কৃষকদের। বিয়ানীবাজার উপজেলার কৃষকরা ৭০ শতাংশ ভর্তুকিতে বিভিন্ন প্রকার কৃষিযন্ত্র ক্রয়ের সুযোগ পাবেন।

সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কৃষির সব সম্ভাবনা কাজে লাগাতে যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্প হাতে নেওয়া হচ্ছে। এটি বাস্তবায়িত হলে দেশব্যাপী কৃষিতে আধুনিক যন্ত্রের ছোঁয়া লাগবে, উন্নত হবে বাংলাদেশের কৃষি।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

সময় বাঁচাবে আর উৎপাদন ব্যয় কমাবে কৃষি যান্ত্রিকীকরণ