সারাদেশে ‘পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে’ এমন একটি গুজব ছড়ানোর পর থেকে বিয়ানীবাজার উপজেলাও ছড়িয়ে পড়েছে ‘কল্লাকাটা’ আতঙ্ক। ‘গলাকাটা’, ‘কল্লাকাটা’, ‘ছেলেধরা’ গুজব প্রতিরোধে করণীয় বিষয় ও জনসচেতন্তা বাড়াতে বিয়ানীবাজার পৌরশহরের নিদনপুর-সুপাতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক জনসচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ শনিবার (২৭ জুলাই) দুপুরে  বিদ্যালয় মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিকা দাস এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী আরিফুর রহমান। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জামাল হোসেন, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান রুমা চক্রবর্তী, বিয়ানীবাজার জনকল্যাণ সমিতি ইউএই’র সভাপতি লু্তফুর রহমান, বিয়ানীবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি শামসুল হক, পৌর কাউন্সিলর আব্দুল কাইয়ুম।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে কাজী আরিফুর রহমান বলেন, দেশ উন্নয়নের মাধ্যমে এগিয়ে যাচ্ছে, সেটাকে বাধাগ্রস্থ করতেই গুজব সৃষ্টি করা হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন কিছু কেউ পোস্ট করলে তাৎক্ষণিক তাকে ধরে আইনের আওতায় আনতে হবে। যদি সে দোষী না হয় তাহলে তাকে ছেড়ে দিতে হবে- অভিভাবক বা এলাকার জনপ্রতিনিধিকে ডেকে তার সত্যতা যাচাইয়ের মাধ্যমে।

‘গলাকাটা’, ‘কল্লাকাটা’, ‘ছেলেধরা’ নিয়ে দেশজুড়ে যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে সেটি রোধ করতে উপজেলার আনাচে-কানাচে আতঙ্ক এবং একের পর এক ঘটে যাওয়া কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটনা নিয়ে সকলকে সতর্ক থেকে সচেতনতা বৃদ্ধি করতেই এই সভার আয়োজন করা হয়। এতে শিক্ষক-শিক্ষিক্ষা ও অভিভাবকবৃন্দ বর্তমান সময়ে ‘গলাকাটা’, ‘ছেলে ধরা’ গুজব প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ে নানা পরামর্শ তুলে ধরেন।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে যুক্তরাজ্য প্রবাসী জসিম উদ্দিন, রোটারিয়ান ফখর উদ্দিন, রোটারিয়ান বেলাল উদ্দিন, সাংবাদিক মাছুম আহমদ, বসুন্ধরা ভাইকিংস’র উপজেলা শাখার সভাপতি এনাম উদ্দিনসহ সুশীল সমাজ ও রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।