প্রবাসী অধ্যুষিত বিয়ানীবাজার উপজেলায় করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। শনিবার (২৫ জুলাই) নতুন করে মৃত্যুর মিছিলে যোগ হলেন আরও একজন। এ নিয়ে বিয়ানীবাজার উপজেলায় মৃতের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১০জনে। এছাড়া রাজধানী ঢাকা এবং সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলায় বসবাসরত বিয়ানীবাজারের আরও দুজন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন।

এদিকে, করোনাভাইরাসে আক্রান্তের দিক থেকে পৌরসভা ‘হটস্পট’ হলেও মৃত্যুর সংখ্যার দিক দিয়ে শীর্ষ রয়েছে মাথিউরা ইউনিয়ন। এখন পর্যন্ত মাথিউরায় করোনা সর্বোচ্চ ৪জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। তারা হচ্ছেন- গত ২৫ জুন মাথিউরা খলাগ্রামের হাজি বুরহান উদ্দিন, ২০ জুলাই মাথিউরা পশ্চিমপার গ্রামের বাসিন্দা, উপজেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি ও ব্যবসায়ী জসিম উদ্দীন (৫৫), ২১ জুলাই মাথিউরা কান্দিগ্রাম এলাকার আদছার উদ্দিন (৮০) এবং সর্বশেষ শনিবার (২৫ জুলাই) মাথিউরা পশ্চিমপার গ্রামের আব্দুল কাদির (৯০)।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২জনের মৃত্যু হয়েছে মুড়িয়া ইউনিয়নে। তারা হলেন- গত ৩১ মে উপজেলার মুড়িয়া ইউনিয়নের তাজপুর গ্রামের তমছির আলী এবং ১১ জুলাই মুড়িয়া ইউনিয়নের পশ্চিম ঘুঙ্গাদিয়া গ্রামের আনোয়ার বেগম।

এছাড়া একজন করে রয়েছেন আলীনগর, চারখাই, লাউতা ও পৌরসভায়। তারা হলেন- গত ১০ জুন বিয়ানীবাজার পৌরসভার কসবার আনসার উদ্দিন, ২৪ জুন উপজেলার চারখাই আদিনাবাদ শেখপাড়ার রেজিয়া খানম, ২৯ জুন লাউতার জলঢুপের শ্যামল রায় এবং ১৮ জুলাই আলীনগরের নজীব আলী (৭০)।

অপরদিকে, রাজধানী ঢাকা এবং সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলায় বসবাসরত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারী বিয়ানীবাজারের দুজন হলেন- গত ২১ মে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে তিলপাড়া ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য এবং মাটিজুরা (মালোপাড়া) গ্রামের বাসিন্দা আবুল কাশেম। তিনি পেশায় ছিলেন একজন পল্লি চিকিৎসক। আবুল কাশেম স্বপরিবারের গোলাপগঞ্জের বাদেপাশা ইউনিয়নের আছিরগঞ্জ এলাকায় বসবাস করতেন। এছাড়া চাকুরীসূত্রে রাজধানী ঢাকায় বসবাসকারী উপজেলার তিলপাড়া ইউনিয়নের মাটিজুরা গ্রামের ছুনু মিয়াও করোনা পজেটিভ হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আবু ইসহাক আজাদ বলেন, করোনায় আক্রান্ত ১০ স্বজনকে আমরা হারিয়েছি। এছাড়া অন্যত্র বসবাসকারী আমাদের আরও ২ স্বজনও করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তিনি বলেন, করোনায় এখন পর্যন্ত মৃত সকলের জানাজা ও দাফনকার্য স্বাস্থ্যবিধি সম্পন্ন হয়েছে। এ কাজে উপজেলা প্রশাসনের নির্ধারিত স্বেচ্ছাসেবী দল সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সর্বশেষ তথ্য মতে, শনিবার (২৫ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত এ উপজেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২১৬ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১২০জন। সেরে ওঠাদের মধ্যে সকলেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন এবং হোম কোয়ারেন্টাইনে চিকিৎসা গ্রহণ করে সুস্থ হয়েছেন।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

করোনা- এক সপ্তাহে বিয়ানীবাজারে ২ জনের মৃত্যু, ২৮ জন প্রবাসী আক্রান্ত