বিয়ানীবাজারের পল্লীতে গাছের আম পাড়া নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিবেশীদের হামলায় গুরুতর আহত এক ব্যক্তির চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের খাসা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গত পহেলা জুন এ ঘটনা ঘটলে শনিবার রাতে আকদ্দস আলী (৫৫) নামের ওই ব্যক্তি মারা যান। তিনি সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

পুলিশ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে মারজান (২৩) নামের এক যুবককে শনিবার রাতে গ্রেফতার করেছে বলে জানান বিয়ানীবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অবণী শংকর কর। ময়না তদন্তের জন্য নিহতের মরদেহ সিলেট ওসমানী হাসপাতালে রয়েছে বলে জানা গেছে।

নিহতের ভাই হাফিজ কামিল আহমদ জানান, গত ১লা জুন তামজিদ (১৫) নামের এক প্রতিবেশীকে আম পাড়তে নিষেধ করেন আকদ্দস আলী। এর জের ধরে কিছুক্ষণ পরই দলবলসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাহের, তামজিদ, মারজান, মাসুকসহ ১০-১২জন লোক আকদ্দস আলীর বসতঘরে এসে হামলা চালান। এ সময় হামলাকারীরা ঘরে থাকা আকদ্দস আলীকে টেনেহিঁচড়ে বাইরে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে বেদড়ক মারধর করে তারা। একপর্যায়ে মূমূর্ষ অবস্থায় আকদ্দস আলীকে নিয়ে ঘরে আসলে পুণরায় তারা বসতঘরে ঢুকে তার উপর হামলা করে। হামলার পর থেকে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল। শনিবার রাতে সেখানে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

এদিকে এ ঘটনায় বিয়ানীবাজার থানায় মামলা দায়ের করা হলে আসামীরা পলাতক থাকায় কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে আকদ্দস আলীর মৃত্যুর খবরে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান শুরু করে এবং মারজান নামের ওই যুবককে তার মামার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। নিহত ব্যক্তি মৃত কাছিম আলীর পুত্র।

বিয়ানীবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অবনী শংকর কর বলেন, নিহতের পরিবারের দায়ের করা আগের মামলাই এখন হত্যা মামলা হিসেবে তদন্ত করবে পুলিশ।

এবিটিভির সর্বশেষপ্রতিবেদন-

বিয়ানীবাজারে নমুনা সংগ্রহের ১৩ দিন পর ধরা পড়ল৩জনের করোনা পজেটিভ