বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আতাউর রহমান খান বলেছেন, জাতীয় চারনেতাকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশকে পিছনের দিকে নিয়ে যাওয়ার ষড়যন্ত্র করা হয়। কারণ এই চার নেতাকে হত্যা করা না হলেও দেশকে রাজাকার-স্বৈরশাসকদের চারণভূমি বানানো যেতনা। বঙ্গবন্ধু এবং জাতীয় চারনেতা ছিলেন দেশের কল্যাণে নিবেদিত। তাদের হত্যা করে দেশে একনায়কতন্ত্র এবং অনুন্নত করার পরিকল্পনা করা হয়। এখন জাতির জনকের কণ্যার নেতৃত্বে দেশ আর আগের তলাবিহীন ঝুঁড়ি নেই। বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু এবং জাতীয় চারনেতার স্মৃতি-চেতনা লালন করে এদেশে রাজনীতি করতে হবে। তবেই বাংলাদেশ সোনার বাংলায় পরণত হবে।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতির ব্যক্তিগত কার্যালয়ে অনুষ্টিত জেলহত্যা দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বাবুল ও জাকির হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা ছালেহ আহমদ বাবুল, হারুনুর রশীদ দিপু, আবুল হোসেন খসরু, রুহুল আলম জালাল, সাহাব উদ্দিন সিহাব, হুমায়ুন কবির প্রমুখ।

এসময় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে জাতীয় চারনেতা ও বঙ্গবন্ধুসহ মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদদের আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়।