বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের গজারাই দিঘীরপার এলাকার হাওর থেকে অর্ধদগ্ধ এক অজ্ঞাত নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে গ্রামবাসী লাশটি দেখতে পেয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও থানা পুলিশকে খবর দেন। পরে খবর পেয়ে ওইদিন বিকালে বিয়ানীবাজার থানার ওসি হিল্লোল রায়ের নেতৃত্বাধীন একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করেছে।

লাশের পরিচয় শনাক্ত ও হত্যা রহস্য উদঘাটনে থানা পুলিশকে সহযোগিতা করতে ঘটনাস্থলে সিলেট জেলা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআইয়ের একটি দল এসে পৌছেছে।

এদিকে, নৃশংস এই ঘটনার খবর পেয়ে আশপাশ এলাকা থেকে উৎসুক জনতা ছুটে এসেছেন।

থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, লাশটি অজ্ঞাত কোনো নারীর। মরদেহটির ৭০ ভাগ অংশই দগ্ধ। মাথায় লম্বা চুল রয়েছে। অর্ধেক দগ্ধ পা দুটো আকারে ছোট। অজ্ঞাত নারীকে শ্বাসরুদ্ধ করে অন্যত্র হত্যা করে এই হাওরে এনে শুকনো খড় দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। খুনিরা লাশের পরিচয় গোপন রাখতেি হত্যার পর এমন নৃশংস ঘটনা ঘটিয়েছে বলে ধারনা করছে পুলিশ। তবে কী অবস্থায় তাকে পুড়ানো হয়েছে সেটি ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন থেকে জানা যাবে বলছে পুলিশ।

বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হিল্লোল রায় বলেন, থানা পুলিশ ও পিবিআইয়ের একটি দল ঘটনাস্থলে রয়েছে। অজ্ঞাত মরদেহটি একজন নারীর। লাশটির শরীরের ৭০ ভাগ অংশই দগ্ধ। লাশের পরিচয় এখনো শনাক্ত করতে পারিনি। তিনি বলেন, লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন সম্পন্ন করে ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

বিয়ানীবাজারে পুড়ে মহিলার লাশ উদ্ধার- মুখ অক্ষত