দুই দফা বন্যায় সিলেটের বিয়ানীবাজারে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের (এলজিইডি) অধীন সড়কে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বন্যার চেয়ে এসব সড়ক অতিবৃষ্টিতে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন সওজ ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীলরা। জেলায় সওজের ১১৬ কিলোমিটার এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের ২৫৫ কিলোমিটার সড়ক অতিবৃষ্টি ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে বিয়ানীবাজার উপজেলার ৮০ কিলোমিটার সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলো পরিদর্শন করে দ্রুত সময়ের মধ্যে ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রতিবেদন পাঠানোর জন্য নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তার নির্দেশনা অনুযায়ী সংশ্লিষ্টরা এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছেন।

একটি সূত্রে জানা যায়, সিলেট জেলায় সওজের অধীনে ৫৪৪ কিলোমিটার সড়ক রয়েছে। এসব সড়কের মধ্যে অতিবৃষ্টিতে ক্ষতি হয়েছে ১১০ কিলোমিটার। বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়া এবং বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধ হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত সড়কের পরিমাণ মাত্র ৬ কিলোমিটার। ইতিমধ্যে অতিবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া সড়কগুলো স্বল্পমেয়াদি মেরামত কাজ শুরু করা হয়েছে। মধ্যমেয়াদি কাজ করার জন্য বিটুমিন, ইট, বালু ও পাথর মজুদ রাখা হয়েছে। কিছু সড়কের মধ্যমেয়াদি কাজ শিগগিরই শুরু করা হবে। এ ছাড়া বন্যায় তলিয়ে যাওয়া ৬ কিলোমিটার সড়কের দীর্ঘমেয়াদি সংস্কার কাজ করতে হবে। এসব সড়কের অনেক অংশে এখনও পানি থাকায় ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করার পর দরপত্র আহ্বান করা হবে।

এ বিষয়ে সিলেট সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী উৎপল সামন্ত বলেন, সড়কে তিন মেয়াদে আমরা মেরামত ও সংস্কার কাজ করে থাকি। এরই মধ্যে স্বল্পমেয়াদি কাজের অংশ হিসেবে বিয়ানীবাজার উপজেলার ২৬ কিলোমিটারের মধ্যে ভাঙা অংশে মেরামত কাজ শুরু হয়েছে। এ ছাড়া এ সড়কের বন্যায় ক্ষতি হওয়া দেড় কিলোমিটারে সংস্কার কাজ করতে আমরা দরপত্র আহ্বান করব। তিনি জানান, সড়কে ক্ষতিগ্রস্ত অংশ পরিদর্শন করে দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ কাজ করছেন। এসব প্রক্রিয়া শেষ হলেই স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি সংস্কার ও মেরামত কাজের কতটুকু অর্থের প্রয়োজন তা নির্ধারণ করা যাবে। আমরা চলতি মাসের মধ্যে সড়কের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করা শেষ করব।

এদিকে অতিবৃষ্টি ও বন্যায় সিলেটের ২৫৫ কিলোমিটার সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীলরা। গত ৭ জুলাই সিলেটের সার্কিট হাউসে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সঙ্গে বৈঠকে জেলার স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীন সড়কগুলোর ক্ষয়ক্ষতির বিষয়টি মন্ত্রীর কাছে তুলে ধরেন দায়িত্বশীলরা।

দুই দফা বন্যায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীন সিলেট জেলার ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক মেরামতের জন্য ২৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। জেলার সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বিয়ানীবাজার, গোলাপগঞ্জ ও ওসমানীনগর উপজেলা। এ তিন উপজেলার স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীন সড়কগুলো সংস্কার ও মেরামতের জন্য সাড়ে ৬ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। বিয়ানীবাজার উপজেলা প্রকৌশল অফিস সূত্রে জানা যায়, অতিবৃষ্টি ও বন্যায় উপজেলার ৮০ কিলোমিটার সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব সড়ক সংস্কার ও মেরামতের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সাড়ে ৬ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে।

উপজেলা প্রকৌশলী রামেন্দ্র হোম চৌধুরী বলেন, বন্যার পানি নেমে গেলেই ক্ষতিগ্রস্ত সড়কের সংস্কার কাজ শুরু হবে। আমরা এরই মধ্যে শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশে ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করে দরপত্র আহ্বান করার কাজ শুরু করেছি। মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি সংস্কার কাজ করার লক্ষ্যে উপজেলা প্রকৌশল অফিস কাজ করছে।