বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের গজারাই দিঘীর পার এলাকার হাওরে পাওয়া লাশটি অজ্ঞাত কোন মহিলার। বুধবার দুপুরে গ্রামবাসী লাশটি দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেন। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিয়ানীবাজার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সিরাজুল ইসলাম ঘটনাস্থলে পৌছে লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন করছেন।

স্থানীয়রা ধারণা করছেন লাশটি অজ্ঞাত কোন মহিলার। তাকে হত্যা করে নেড়া দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। মুলত: খুনিরা লাশের পরিচয় চাপা দিতে হত্যার পর এমন নৃশংস ঘটনা ঘটিয়েছে বলে স্থানীয়রা অনুমান করছেন। এমন নৃশংস ঘটনার খবর পেয়ে আশপাশ এলাকা থেকে উৎসুক জনতা ছুটে এসেছেন।

ঘটনাস্থলে থাকা বিয়ানীবাজার নিউজ২৪ এর বার্তা সম্পাদক শহিদুল ইসলাম সাজু বলেন, লাশটি দেখে সহজেই অনুমান করা যাচ্ছে এটি কোন মহিলার দগ্ধ মরদেহ। আংশিক দগ্ধ লাশের মাথায় লম্বা চুল রয়েছে। অর্ধে ক পুড়া পা আকারে ছোট। ধারণা করা যায় প্রাপ্ত বয়স্ক একজন মহিলাকে পুড়নো হয়েছে। তবে কি অবস্থায় তাকে পুড়ানো হয়েছে সেটি ময়না তদন্তের প্রতিবেদন থেকে জানা যাবে।

বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হিল্লোল রায় বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। যতটুকু জানা গেছে লাশটি আংশিক পুড়ানো রয়েছে। লাশের পরিচয় এখনো শনাক্ত হয়নি। আমরা লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন সম্পন্ন করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট এমএজি ওসমানি হাসপাতালে প্রেরণ করা হবে।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

বিয়ানীবাজারে পুড়ে মহিলার লাশ উদ্ধার- মুখ অক্ষত