সুয়াইবুর রহমান স্বপন। ০৯ এপ্রিল ২০১৭।

বাংলা সনের প্রতি চৈত্রমাসে বিয়ানীবাজারের সপ্তম শতাব্দির বাসুদেব প্রাঙ্গনে বারণী মেলা বসে। দেড় হাজার বছরের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে এ বারণী মেলা। চৈত্র মাসের প্রতি রবিবার এ মেলা বসার কারণে স্থানীয়ভাবে এর নাম ‘রোববান্নি’। রোববান্নি আগের সে জৌলস নেই। তারপরও সকল শ্রেণির পেশার মানুষ একবার হলেও বারণী মেলা ঘুরে দেখেন।

বারণী মেলার বিভিন্ন গৃহস্থালি পণ্য ও খাবার দোকানের পাশাপাশি ঘুড়ি, নাটাইয়ের দোকান বসে। বারণী মেলা ঘিরে শিশু-কিশোরদের মধ্যে অন্য রকম উদ্দীপনা কাজ করে। বিশেষ করে হরেক রঙের ঘুড়ি ক্রয় করে চৈত্র বিকেলে ঘুড়ি উড়ানোর উৎসবে মেতে উঠেন কিশোররা।

৪২ বছর ধরে বারণী মেলায় সুতা-নাটাই বিক্রি করছেন বৃদ্ধ আছকর আলী। তিনি বলেন, বান্নিতে সুতা, নাটাই ও অন্যন্য জিনিস পত্র বিক্রি করি। কিন্তু কুড়ি বছর আগের সেই বিক্রি নেই। এখন আর ক্রেতা বান্নিতে আসে না। এরপর যেসব কিশোর আসে তাদের কাছে সুতা নাটাই বিক্রি করে পুষিয়ে যায়।

ঘুড়ি ক্রয় করতে আসা স্কুল ছাত্র রেহান জানায়, ঘুড়ি ও সুতা কিনলাম কিন্তু কার সাথে যে ঘুড়ি নিয়ে কাটাকাটি খেলবো খুঁজে পাওয়া মুশকিল।