বিয়ানীবাজার উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের রায়খাইল এলাকার নিজ গৃহে অস্ত্রধারী যুবকের আঘাতে মা ও দুই মেয়ে আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ধারালো অস্ত্রধারী যুবক তাদের কুপিয়ে রক্তাক্ত করে। তার নাম ইমন। মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটলেও আহতরা রাত ১১টায় বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেন। আহতরা নিরিহ হওয়ায় হামলাকারির ভয়ে অনেকটা গৃহবন্দি হয়ে পড়েছেন। এ ঘটনাটি ইউপি চেয়ারম্যানসহ গ্রাম্য মুরব্বিরা সালিশ বিচারের মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করছেন।

জানা যায়, পূর্ব বিরোধের জের ধরে ইউনিয়নের রায়খাইল এলাকার মোক্তার আলীর পুত্র শাহরিয়ার আহমদ ইমন দুপুর দেড়টার দিকে প্রতিবেশি ঘরে ডুকে করে মা ছয়রুন নেছা (৫০) এবং তার দুই মেয়ে রুমানা (২২) ও সাবানা (২৫)কে (হাসপাতাল থেকে পাওয়া তথ্য) রাম দিয়ে কোপ দেয়। এতে তারা রক্তাক্ত জখম হন। তাদের আত্মচিৎকারের প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসলে হামলাকারি পালিয়ে যায়। আহতদের মাথা, হাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত রয়েছে। খবর পেয়ে স্বজনরা রাত ১১টার দিকে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে তাদের ভর্তি করেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছেন।  আহতরা বর্তমানে আশংকামুক্ত বলে চিকিৎসক জানান।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে আলীনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ বলেন, এরকম একটি ঘটনা ঘটেছে। আমরা স্থানীয় মুরব্বিদের নিয়ে বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করছি। আশা করি বিষয়টি সামাজিকভাবে নিষ্পত্তি হবে।

এ ঘটনায় বিয়ানীবাজার থানা কোন অভিযোগ দায়ের হয়নি বলে জানান বিয়ানীবাজার থানার ওসি চন্দন কুমার চক্রবর্তী। তিনি বলেন, এরকম কোন ঘটনা আমার জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি।