ব্রিটেনের ইয়র্ক সেন্ট জন ইউনিভার্সিটির সেন্ট্রাল লন্ডনের বার্বিক্যান ক্যাম্পাসের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের লন্ডন ষ্টুডেন্ট অফিসার নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশি মেধাবি শিক্ষার্থী আবিদ রহমান অনিক। ১৮৪১ সালে প্রতিষ্ঠিত এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে আবিদ রহমান অনিক প্রথম বাংলাদেশি শিক্ষার্থী যিনি এই সম্মান অর্জন করে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বলভাবে তুলে ধরেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ষ্টুডেন্টদের ইলেকট্ররাল ভোটের মাধ্যমে সর্ব্বোচ্চ ৪শত ভোট পেয়ে আবিদ রহমান অনিক নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আব্দুল্লাহ পেয়েছেন ১৪৫ ভোট। আবিদ এমবিএ ইন বিজনেস ম্যানেজমেন্ট এর শেষবর্ষে লেখাপড়া করছেন।এখন পর্যন্ত তার একাডেমিক ফলাফলও প্রত্যাশিতভাবে ভালো।

ব্রিটেনের সুপ্রাচীন এই বিশ্ববিদ্যালয় ঐতিহ্যগত শিক্ষা ও শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি চর্চায় ধারাবাহিক মান বজায় রেখে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত করছে। লন্ডন ক্যাম্পাস এই ধারাবাহিকতায় অন্যতম সেরা মানের তালিকায় রয়েছে।

ইয়র্ক সেন্ট জন ইউনিভার্সিটি লন্ডন ক্যাম্পাসটিতে শুধুমাত্র পোস্ট গ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থীরা লেখা পড়া করছে। শতকরা ৯৭ভাগ কর্মসংস্থানের রেকর্ড বহন করে চলা এই বিশ্ববিদ্যালয়ে আবিদ রহমান অনিক ২০২১-২২ সালের শিক্ষার্থীদের সমস্যা চিহ্নিতকরণ ও নায্য দাবী-দাওয়া আদায়ে কাজ করবে।

এছাড়াও এই বিশ্ববিদ্যালয়ের লন্ডন ষ্টুডেন্ট অফিসার হিসাবে আবিদ শিক্ষার্থীদের মতামত ও তাদের নানা শিক্ষামূলক উদ্ভাবনী কাজের সহায়তা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগের সাথে সমন্ধয়, শিক্ষাজীবনের একজন ছাত্র হিসাবে তার সেরা মেধা ও মনন বিকাশে সার্বিকভাবে সহযোগিতা ও তাদের প্রেরণার জায়গাগুলোতে কাজ করবেন। লীডারশীপ এই কাজে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনা এবং শিক্ষার্থীদের সাথে নানা শাখায় পেশাগত সমন্ধয় সাধনের মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজ করবেন।

এছাড়াও আবিদ রহমান অনিক বিভিন্ন ধরণের ভলান্টিয়ার ও পেইড জব করার অভিজ্ঞতা অর্জনে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সহায়তা এবং শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে নিকট ভবিষ্যতের জন্য নতুন লিডারশীপ নেতৃত্ব তৈরীতেও কাজ করবেন।

ইয়র্ক সেন্ট জন ইউনিভার্সিটি সেন্ট্রাল লন্ডনের বার্বিক্যান ক্যাম্পাস সহ দুই ক্যাম্পাসে ৭হাজারের অধিক শিক্ষার্থী লেখাপড়া করছেন।

ষ্টুডেন্ট অফিসার নির্বাচিত হওয়ায় আবিদুর রহমান অনিক বলেন, প্রাচীনতম এই বিশ্ববিদ্যালয় লেখাপড়ার পাশাপাশি মৌলিক ও সৃজনশীল শিক্ষা ক্ষেত্রেও তুলনামূলক এগিয়ে আছে, আমি সর্বতভাবে চেষ্টা করবো – শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন যৌক্তিক দাবি দাওয়া ও সমস্যা চিহ্নিত করে তা সমাধান করতে। এছাড়াও ক্যাম্পাসে বিভিন্ন ধরণের সৃজনশীল কর্মশালা ও ভ্যলান্টরী কাজের প্রতি উৎসাহ ও সহযোগিতা দানের মাধ্যমে ক্যাম্পাসকে আরও প্রাণবন্ত করতে উদ্যোগ নেব।

উল্লেখ্য, আবিদ রহমান অনিকের বাড়ি সিলে্তের বিয়ানীবাজার উপজেলার নয়াগ্রামে। বাবা মো. আতিকুর রহমান পেশায় একজন ফার্মাসিস্ট। মা রাহেলা বেগম। দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। এছাড়াও বাংলাদেশে থাকা অবস্থায় তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার উদ্দেশ্যে দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সহযোগী সংগঠন ‘সততা সংঘ’র বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজ শাখার প্রতিষ্ঠাকালীন সহ সভাপতি, প্রেরণা যুব চক্রের ক্রীড়া সম্পাদক ,বিয়ানীবাজার উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েশনের সহ সাধারণ সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি পরিষদের সহ সভাপতি, বিয়ানীবাজার সাইক্লিষ্টের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা, সিলেট জেলার থানা পর্যায়ের প্রথম ক্রিকেট আসর বিয়ানীবাজার ক্রিকেট লীগ (বিসিএল) প্রথম আসরের যুগ্ম আহবায়কের দায়িত্বও পালন করেছেন।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

বঙ্গবন্ধু ম্যারাথন, দৌড়ালেন বিয়ানীবাজারের বিভিন্ন শ্রেণীর দু’শতাধিক অ্যাথলেট