বিয়ানীবাজার নিউজ ২৪। ০৮ এপ্রিল ২০১৭।

বিশ্বনাথে শিশুদের ঝগড়াকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ৩ পুলিশ সদস্যসহ উভয় পক্ষে অন্তত ৫০জন আহত হয়েছেন। সংঘর্ষ এড়াতে পুলিশ ৩৮ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপসহ ঘটনাস্থল থেকে উভয় পক্ষের ২৫জনকে গ্রেফতার করে।

শুক্রবার বিকেলে পুলিশ অ্যাসল্ট মামলা (মামলা নং ৪) দায়েরের পর আদালতের মাধ্যমে গ্রেফতারকৃতদের জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। ওই ২৫জনসহ আরও ৭০/৮০জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে এ মামলাটি দায়ের করেন থানা পুলিশের এসআই বিনয় চক্রবর্তী। এরআগে বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় উপজেলার মির্জারগাঁওয়ের আবুল খায়ের লালা মিয়া ও আব্দুর রকিব লেছু মিয়া পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে। তবে এ ঘটনায় শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত মির্জারগাঁওয়ের কোন পক্ষই থানায় মামলা দায়ের করেননি।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, বৃহস্পতিবার বিকেলে মির্জারগাঁওয়ের ফয়জুল হক ও আব্দুস শুকুরের ছেলেদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এঘটনাকে কেন্দ্র করে রাত ১০টায় দু’পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৩৮ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। প্রায় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে থানা পুলিশের এসআই রাজিব রহমান, বিনয় চক্রবর্তী ও কনস্টেবল সালেহ আহমদ, মির্জারগাঁওয়ের মইন উদ্দিন, আমির আলী, আত্তর আলী, সুমেল আহমদ, আব্দুন নূর, কালা মিয়া, আব্দুস সালাম, কুতুব উদ্দিন, ফয়জুল হক, শুকুর আলী, ধন মিয়াসহ ৫০জন আহত হন।

এদিকে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়া ২৫জন হচ্ছে, মির্জারগাঁওয়ের মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে এবাদুর রহমান (৪৫), সামছুল হকের ছেলে গোলাম মাওলা (৩২), মৃত গোলাম আজাদের ছেলে সুমন আহমদ (২৬), মিছবাহ উদ্দিনের ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন (২৩), ইউছুফ আলীর ছেলে আক্তার আলী (২৮), মইজ উদ্দিনের ছেলে সুমেল আহমদ (২২) ও সুয়েব আলী (২০), মৃত জিয়া উদ্দিনের ছেলে রায়হান আহমদ (৩৩), সুনাম উদ্দিনের ছেলে আবু সাইফ (২৩), নুরুল হকের ছেলে তানভীর আহমদ (২০), ফরিদ উদ্দিনের ছেলে আলী আকবর (২৩),  কমরু মিয়ার ছেলে খছরু মিয়া (৩৮), মৃত তছির আলীর ছেলে হামিদুল হক (৩০), মৃত মনু মিয়ার ছেলে সাইফুল আলম (২৮), ছাইনুল হকের ছেলে উকিল আলী (২৬), কালা মিয়ার ছেলে রহমত উল্লাহ (২২), আসাব উদ্দিনের ছেলে আবুল কাশেম (২৮), মৃত জমসেদ আলীর ছেলে আব্দুল্লাহ (৩৯), বোরাক উদ্দিনের ছেলে ফজর আলী (৩২), সুন্দর আলীর ছেলে গোলাম আমজদ (৩২), মাহতাবপুরের তুরকান উদ্দিনের ছেলে নজরুল ইসলাম (৩০), চন্দন আলীর ছেলে সুমন (১৮) সোনাপুরেরমৃত আলতাব আলীর ছেলে আব্দুর রহমান (৩২), চন্দ্রগ্রামের মৃত সতেন্দ্র মোহন করের ছেলে সুরঞ্জিত কর (২৮) এবং সিলেট ফতেহপুরের আব্দুল ওয়াহাবের ছেলে ফয়সল আহমদ (২৮)।

এব্যাপারে থানার ওসি মনিরুল ইসলাম পিপিএম বলেন,  পুলিশ অ্যাসল্ট মামলায় গ্রেফতারকৃতদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।