অপসাম্প্রদায়িক বিয়ানীবাজারের সুনাম অক্ষুন্ন রেখেছেন জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় এলাকাবাসী। ধর্ম-বর্ণ নয় সবার সহাবস্থান- প্রীতির এ বন্ধনকে আরো উচ্চ আসনে অধিষ্ট করতে বৈঠকে বসেন। সমাধানও হয়ে যায় উভয় পক্ষের কাছ থেকে ঘটনার বর্ণনা শেষে।

বৈঠকে অংশ নেয়া স্থানীয়রা জানান, আমরা হিন্দু-মুসলিম সবাই বাসুদেব মন্দিরে বসে আলোচনার মাধ্যমে অপ্রীতিকর ঘটনার সুষ্ঠু সমাধান নিশ্চিত করেছি। এখানে হিন্দু ধর্মের লোকজন যেমন ছিল তেমনি ছিলেন মুসলিম ধর্মের লোকজনও। আসলে আমরা এখানে ধর্ম-বর্ণের চেয়ে অগ্রাধিকার ছিল আমরা সবাই এক এলাকায় বসবাস করি।

বৈঠকে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম পল্লব, ভাইস চেয়ারম্যান জামাল হোসেন, যুক্তরাজ্য প্রবাসী কমিউনিটি নেতা মুনজ্ঞির আলী, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সামসুুল হক, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ফখর উদ্দিন, বাসুদেব সেবক সংঘের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মহেশ ঘোষ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অমিতাভ পাল চৌধুরী, সদস্য অরুণাভপাল চৌধুরী মোহন, সাংবাদিক সজীব ভট্টাচার্য, সাধন দত্ত, শংকর দেব, সুকেন্দু চক্রবর্তী, সুজিত চক্রবর্তী ও অজিত আচার্য প্রমুখ।

বৈঠকে গত ১৫ জুন সকালে বাসুদেব বাড়ির পশ্চিম অংশের সীমানা প্রাচীর নির্মাণকালে বাসুদেব অঙ্গনে বসবাসকারি ও স্থানীয় অধিবাসীদের সাথে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার সুষ্ঠু নিষ্পত্তি শেষে উভয়পক্ষের দাবি দাওয়ার বিষয়ে বাসুদেব সেবক সংঘ এলাকাবাসীর সাথে বৈঠকে বসে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেন দায়িত্বশীলরা।

বাসুদেব সেবক সংঘের সদস্য অরুণাভপাল চৌধুরী মোহন বলেন, সুন্দর ও সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং গত ১৫ জুনের ঘটনার সুষ্ঠু নিষ্পত্তি হয়েছে। তিনি বলেন, বাসুদেব সেবক সংঘ বৈঠকে বসে পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করবে এবং স্থানীয় এলাকাবাসীর সাথে পরবর্তী বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। তবে বাসুদেব এবার রথে চড়বেন কি না সেটির বিষয়ে বাসুদেব সেবক সংঘের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

বৈঠকের মূল ভূমিকা রাখা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম পল্লব বলেন, সম্প্রীতির বন্ধন নষ্ট হয়নি- বিষয়টি ভুল বোঝাবুঝি ছিল। আমরা এলাকাবাসী হিন্দু-মুসলিম সবাই বসে এ ঘটনার সুষ্ঠু নিষ্পত্তি করে দিয়েছি এবং আগামী এরকম ঘটনার যাতে পুনরাভিত্তি না ঘটে সে বিষয়ে সবাইকে সর্তক করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া বাসুদেব বাড়িতে যারা অস্থায়ীভাবে বসবাস করছেন তাদের বাসুদেব অঙ্গনের মান মর্যাদা অক্ষুন্ন রেখে বসবাস করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, দেয়াল নির্মাণসহ অন্যান্য বিষয় নিয়ে বাসুদেব সেবক সংঘের সাথে এলাকাবাসীর বৈঠকের মাধ্যমে সমাধান হবে। শিগগিরই সে বৈঠক হয়ে যাবে।