করোনা মহামারীর মধ্যে বাংলাদেশসহ অন্তত ১১৬টি দেশকে ‘ডু নট ট্র্যাভেল’ তালিকাভুক্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে আপাতত এই দেশগুলোতে ভ্রমণ থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এই তালিকায় যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, ইসরায়েল, মেক্সিকো, জার্মানিসহ আরও কিছু রাষ্ট্রকে ‘করোনার অতি উচ্চ সংক্রমণের’ দেশ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

অতি সম্প্রতি দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভ্রমণ নির্দেশিকার এই তালিকা হালনাগাদ করা হয়েছে। খবর রয়টার্সের

এর আগে, সোমবার মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, ভ্রমণে সর্বোচ্চ সতর্কতার তালিকার চতুর্থ পর্যায়ে আনেকগুলো নতুন দেশকে অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে, যে কারণে বিশ্বের ৮০ শতাংশ দেশই এখন এই তালিকায় চলে আসবে।

মঙ্গলবারের আগ পর্যন্ত বিশ্বের প্রায় ২০০টি দেশের মধ্যে এই তালিকায় ৩৪টি দেশের নাম ছিল। এখন ১৫০টিরও বেশি দেশকে চতুর্থ পর্যায়ের ভ্রমণ সতর্কতার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার কথা বিবেচনা করছে তারা।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এই পদক্ষেপ বিভিন্ন দেশে করোনা মহামারী পরিস্থিতির পুনর্মূল্যায়নের ওপর ভিত্তি করে নেওয়া হয়নি, বরং এটা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভ্রমণ সতর্কতার পরিমার্জনের প্রতিফলন যা মূলত যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন-এর বিদ্যমান মহামারীর মূল্যায়নের ওপর নির্ভর করে নির্ধারণ করা হয়েছে। এই পরামর্শ বাধ্যতামূলক নয় এবং এতে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের ভ্রমণের ওপর কোনো ধরনের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়নি।

এই তালিকায় ভারত, পাকিস্তান, মালদ্বীপ, আফগানিস্তান, ফিনল্যান্ড, মিসর, বেলজিয়াম, তুরস্ক, ইতালি, সুইডেন, সুইজারল্যান্ড ও স্পেনও আছে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ বেড়ে চলায় ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ নাগরিককে ইউরোপের অধিকাংশ দেশে ভ্রমণ না করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ইউরোপ, চীন, ব্রাজিল, ইরান ও সাউথ আফ্রিকায় সম্প্রতি ভ্রমণ করেছেন, মার্কিন নাগরিক নন এমন ব্যক্তিদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশেও নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দেশটি।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-