লুৎফুর রহমান, আরব আমিরাত থেকে। ০৮ এপ্রিল ২০১৭।

যেখানে বাঙালি সেখানেই উৎসব। আরব আমিরাতের প্রবাসিরা উদযাপন করেছে আগাম নববর্ষ। যান্ত্রিক সভ্যতার বাইরে যেতে চেয়েছেন তারা। ফিরে যেতে চেয়েছেন মাটির টানে-পরবাস থেকে-দেশে।

সংহতি সাহিত্য পরিষদ আরব আমিরাত শাখা আয়োজন করে বর্ণাঢ্য বাঙালিয়ানা উৎসবের। বৈশাখের পুঁথি, জারি, ভাটিয়ালি, লোকগীতি, কবিতা এবং লোকনৃত্যে মুখরিত হয়ে ওঠে শারজার শেখ ফয়সল এলাকা। ‘বিশ্ব মানব হ’বি যদি শ্বাশত, বাঙালি হ’ এ শ্লোগানে গত শুক্রবার (৭ এপ্রিল) অনুষ্ঠিত উৎসবে ছিল প্রাণের আমেজ।

উৎসবে দেশীয় খাবার, পিঠা প্রদর্শনী এবং মুক্তিযুদ্ধের গান এনে দেয় ভিন্ন আমেজ। অনেকে পরবাসে বসেও যেন খুঁজছিলেন প্রিয় বাংলাদেশকে। নারীরা শাড়ি, আলতা, চুড়ি আর পুরুষেরা পানজাবী পরে এসে মেতে ওঠেছিলেন বাঙালিয়ানায়। শিশুরাও এসেছিলো বাঙালি সাজে। প্রবাসে বেড়ে ওঠা প্রজন্মকে বাংলা সংস্কৃতির সাথে পরিচয় করাতে এমন আয়োজনের প্রয়োজন জানালেন প্রবাসিরা।

সংহতির শাখা সভাপতি মোস্তাকা মৌলার সভাপতিত্বে ও শাখা সম্পাদক একাত্তর টিভি প্রতিনিধি লুৎফুর রহমানের সঞ্চালনায় জাতীয় সংগীতের মধ্যে দিয়ে শুরু হয় উৎসব। উৎসব সমন্বয়ক ছিলেন সংহতি আমিরাতের সহ সভাপতি সৈয়দা দিবা।

গান পরিবেশন করেন আমিরাত প্রবাসি কণ্ঠশিল্পী রেহানা রহমান, ইয়াছমিন কালাম, জসিম উদ্দিন পলাশ, শম্পা শফিক, মাসুম, ত্হমিনা রিক্তা, সাবরিনা মেহেরুন, সঞ্জয় ঘোষ। কবিতা আবৃতি করেন প্রফেসর আবদুস সবুর, সৈয়দা দিবা, আহমেদ ইফতিখার পাভেল, আবদুল্লাহ শাহিন, মাহনুর রওশন মুমু এবং নাচ পরিবেশন করেন তিশা সেন। উৎসবে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিআইপি জেসমিন আক্তার, নারী উদ্যোক্তা শাফিয়া আক্তার আখি, এনআরবি ব্যাংক পরিচালক আবদুল করিম, শফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

সংহতি সাহিত্য পরিষদ বিলেতের মূলধারার সংগঠন। এর শাখা সংগঠন আরব আমিরাত আগামিতেও মূলধারার কাজ করে যাবে জানালেন সংশ্লিষ্টরা।