ফ্রান্সে অনিয়মিত অভিবাসীদের নিয়মিতকরণের দাবিতে ২০ দিনের মাথায় আবারো বিক্ষোভ মিছিল ও পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শনিবার (২০ জুন) দুপুরে রাজধানী প্যারিসের ন্যাশন থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে স্থালিংগ্রাদ-এ গিয়ে শেষ হয়।

বিক্ষোভে বিভিন্ন দেশের কয়েক হাজার মানুষ অংশ নেন। এতে বাংলাদেশিদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। বাঙালি কমিউনিটির বিভিন্ন পর্যায়ের বেশ কিছু সংগঠন এ বিক্ষোভে যোগ দেয়।

বিক্ষোভ মিছিল শেষে আয়োজিত সমাবেশে বিভিন্ন দেশের অভিবাসীরা বক্তব্য দেন। বাংলাদেশী কমিউনিটির পক্ষে বক্তব্য দেন ফ্রান্সের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকচারার এনকে নয়ন ও উবায়দুল্লাহ কয়েস।
সমাবেশে বক্তারা দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। এর আগে পূর্বনির্ধারিত সময়ের অনেক আগে থেকেই প্লাস দো লা নেশন এলাকায় দলে দলে লোক সমাগম হতে থাকে। তাদের হাতে ব্যানার এবং শ্লোগান লেখা ফেস্টুন শোভা পায়। মুহুর্মুহু শ্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে প্রাঙ্গনটি। এ সময় আন্দোলনকারীরা স্লোগান দেন অনিয়মিত সকলকে নিয়মিত করা হোক, আমরা যাদের কাগজ আছে সম্মতি প্রকাশ করছি।

করোনার কারণে সৃষ্টি হওয়া সংকটের কথা বিবেচনা করে ইউরোপের একাধিক দেশ অনিয়মিতদের জন্য সহজ পদ্ধতিতে নিয়মিত হওয়ার দ্বার উন্মোচন করে। আশা করা হয়েছিল ফ্রান্স সরকারও এমন কোনো উদ্যোগ নেবে। এ নিয়ে বিভিন্ন সংস্থা দাবি তোলার পাশাপাশি স্বয়ং ফ্রান্স জাতীয় সংসদের শতাধিক সদস্য একই দাবি তুলেন। কিন্তু এতেও সরকারের কোনো টনক নড়েনি। ফলে গত ৩০ মে বিক্ষোভের ডাক দেয় অভিবাসীদের নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সংগঠন।

এবিটিভির সর্বশেষপ্রতিবেদন-

বিয়ানীবাজারে নমুনা সংগ্রহের ১৩ দিন পর ধরা পড়ল৩জনের করোনা পজেটিভ