করোনা রোগী শনাক্তের দিক থেকে এবার নতুন রেকর্ড গড়েছে সিলেটের প্রবাসী অধ্যুষিত বিয়ানীবাজার উপজেলা। প্রথমবারের মতো এই উপজেলায় একসাথে সর্বাধিক ৯০জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে বিয়ানীবাজারে করোনা প্রমাণিত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০৫৪জনে।

বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আবু ইসহাক আজাদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ডা. আবু ইসহাক আজাদ জানান, গত ৩১ জুলাই বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে যেসব নমুনা সংগ্রহ করে সিলেটের ওসমানী ও শাবি ল্যাবে পাঠানো হয়, বুধবার রাতে ল্যাবে প্রাপ্ত সেই নমুনার প্রতিবেদন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কাছে এসে পৌছায়। এতে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন ৫৮ জন। এর মধ্যে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনার আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন বড়লেখা উপজেলার তিনজন আক্রান্ত রোগী রয়েছেন। একইসাথে বৃ্হস্পতিবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বুথে র‍্যাপিড এন্টিজেন টেস্টে আরও ১২জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া প্রবাসীগামী এবং সিলেটের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও ২০জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আগে গত ২৮ জুলাই বিয়ানীবাজারে সর্বোচ্চ ৫০ জন পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়েছিলেন।

বিয়ানীবাজারে গত বছরের ২৪ এপ্রিল প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। আর প্রথম মৃত্যু ঘটে ওই বছরের মে মাসে। এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৫৩জন রোগী। বিয়ানীবাজারে করোনা পরীক্ষায় আক্রান্তের হার ৭০ শতাংশেরও বেশি। পাশাপাশি মৃত্যুর হারও এই উপজেলায় আশঙ্কাজনক। শনাক্তদের মধ্যে মৃত্যুর হার প্রায় ৭ শতাংশের কাছাকাছি।

এদিকে, করোনা সংক্রমণের এমন ঊর্ধ্বগতিতে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বশীলরা। আর সেকারণেই জনসাধারণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিরা।

এবিটিভির বিশেষ প্রতিবেদন

বিয়ানীবাজারে গণটিকার সূচি পরিবর্তন, যখন যেভাবে আর যারা পাবেন