নরসিংদী জেলার মাধবদী থানার কান্দাইল এলাকায় দুর্ঘটনায় নিহত বিয়ানীবাজারের পাঁচ তরুণ ব্যবসায়ী ও চালকের মরদেহ নরসিংদী সদর হাসপাতালে রয়েছে। সেখানে লাশের গোসল, কাফন পরানো শেষে আজ সোমবার রাস সাড়ে ৭টায় লাশবাহী এ্যাম্বুল্যান্সে করে বিয়ানীবাজারের উদ্দেশ্যে যাত্রা করবে।

বিয়ানীবাজারের অধিবাসী ঢাকার তরুণ ব্যবসায়ী জাবিল দুর্ঘটনার সংবাদ শুনে ঢাকা তেকে নরসিংদী ছুটে আসেন। তিনি হাসপাতালে বিয়ানীবাজারের অনেকের সাথে অবস্থান করছেন। জাবিল জানান, ছয় তরুণের লাশ হাসপাতালের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় গোসল শেষে কাপন পরানো হয়েছে। লাশগুলো বহনের জন্য ছয়টি কফিন এসেছে সদর হাসপাতালে। এসব কফিনে মরদেহ রেখে লাশবাহী এ্যাম্বুল্যান্সে করে বিয়ানীবাজারে আনা। জাবিল বলেন, রাত সাড়ে ৭টার দিকে নরসিংদী থেকে যাত্রা করা হবে। বিয়ানীবাজারে পৌঁছাতে মধ্যরাত হয়ে যাবে।

জাবিল জানান, হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার পর ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমান ও দেলোয়ার হোসেন এখন কিছুটা সুস্থ আছেন। তারা স্বাভাবিক চলাফেরা করতে পারছেন। এছাড়া নিহতদের মধ্যে রূপশীর রেজাউল করিম ও জি ফোনের বাবুল আহমদ হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যান। চিকিৎসকরা তাদের চিকিৎসা করার তেমন একটা সুযোগ পাননি।

প্রসঙ্গত, আজ সোমবার ভোরে চটট্টগ্রাম থেকে ঢাকা হয়ে বিয়ানীবাজার আসার পথে ব্যবসায়ীদের মাইক্রো বিপরীত দিক থেকে আসা বাসের চাপায় ধুমড়ে মুচড়ে যায়। মাইক্রোতে থাকায় ৫ ব্যবসায়ী ও চালক মারা যান। দুইজন ব্যবসায়ী আহত হনে। আহতদের অবস্থা এখন অনেকটা ভাল রয়েছে।