আগামী ২২ অক্টোবর সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপূজাকে সামনে রেখে কানাইঘাট উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এক প্রস্তুতি সভা মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় উপজেলা সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলার নবাগত নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন্ত ব্যানার্জির সভাপতিত্বে শারদীয় দূর্গাপূজাকে শান্তিপূর্ণ ভাবে পালনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভায় বিভিন্ন সিন্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। দেশে করোনা দুর্যোগ বিরাজ থাকায় এবারের শারদীয় দুর্গাপূজা কোন ধরনের উৎসব ছাড়াই মন্ডপকেন্দ্রিক সব ধরনের ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান স্বরাষ্ট্র ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের জারিকরা নির্দেশনা অনুযায়ী পালন করার জন্য সকল পূজা মন্ডপ কমিটির নেতৃবৃন্দকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

দুর্গাপূজার শান্তিপূর্ণ ভাবে পালনের লক্ষ্যে মতামত তুলে ধরে বক্তব্য দেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজা বেগম, কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ শামসুদ্দোহা পিপিএম, উপজেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি চিত্রশিল্পী ভানু লাল দাস, সাবেক সভাপতি মাস্টার শলীল চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক ভজন লাল দাস, উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাবেক সভাপতি দূর্গাকুমার দাস, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক রিংকু চক্রবর্তী, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জহিরুল হক, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, বিভিন্ন পূজা মন্ডপের নেতৃবৃন্দের মধ্যে শ্যামল চন্দ্র দাস, বিধান দাস, বিকাশ চন্দ্র দাস, দিলীপ দেবনাথ, সুবোধ দাস, দিলীপ কৈরি প্রমুখ।

প্রস্তুতি সভায় নবাগত নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন্ত ব্যানার্জি বলেন, কানাইঘাটে সকল ধর্মের মানুষের মধ্যে সম্প্রীতির বন্ধন দেখে আমি অভিভূত হয়েছি। বাংলাদেশে সকল ধর্মের মানুষ অত্যন্ত উৎসবমুখর ও শান্তিপূর্ণ ভাবে তাদের প্রতিটি ধর্মীয় উৎসব পালন করে থাকেন। এ বছর করোনা পরিস্থিতি বিরাজ থাকায় সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী প্রত্যেকটি মন্ডপে উৎসব ছাড়াই পূজা পালন করা হবে। কোন দুষ্কৃতিকারী চক্র ধর্মীয় বিভাজন তৈরি করে কোন ধরনের অশুভ কর্মকান্ড সহ ফেসবুকে উসকানিমূলক গুজব সৃষ্টি করতে না পারে এজন্য সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। তিনি আরো বলেন, উপজেলার ৩১টি মন্ডপে পুলিশের পাশাপাশি আনসার ভিডিপি স্ট্রাইকিং ফোর্স নিরাপত্তার জন্য মোতায়েন থাকবে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রতিমা বিসর্জন দেওয়ার জন্য নির্বাহী কর্মকর্তা সকল মন্ডপ কমিটির নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-