দেশের সপ্তম টেস্ট ভেন্যু হিসেবে আগামী ৩রা নভেম্বর অভিষেক হচ্ছে সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামের। এদিন সফরকারী জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশ দলের একটি টেস্ট ম্যাচ মাঠে গড়াবে। টেস্ট অভিষের জন্য তৈরি হচ্ছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য মন্ডিত এই স্টেডিয়াম।

টেস্ট ভেন্যুর মর্যাদা পেতে আইসিসির কোনো অনুমতির দরকার নেই সিলেটের। কারণ ২০১৪ তে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সময়ই এ অনুমোদন নেয়া হয়েছে। এমনটাই জানিয়েছেন বিসিবির গ্রাউন্ডস কমিটির চেয়ারম্যান মাহবুবুল আনাম।

‘সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম টেস্ট আয়োজনের সব প্রস্তুতি চলছে। আমাদের জন্য স্বস্তির বিষয় টেস্ট ভেন্যুর স্বীকৃতির জন্য আইসিসির নতুন করে অনুমোদন প্রয়োজন নেই। কারণ আমরা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সময়ই সব অনুমোদন নিয়ে রেখেছিলাম। তাই নতুন করে কোনো পরিদর্শন হবে না।’

সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম নতুন মাইলফলকে পৌঁছায় দারুণ গর্বিত সিলেট ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও বিসিবি পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল। এখন স্টেডিয়ামের সাজসজ্জা হচ্ছে। এরপর প্রস্তুতি নেয়া হবে ম্যাচটিকে বিশেষ করে রাখার জন্য।

শফিউল আলম বলেছেন, ‘সিলেট স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্ট মাঠে আমাদের জন্য নতুন মাইলফলক। এটি আমাদের জন্য গর্বেরও। যে কারণে এই আয়োজনকে ঘিরে আমরা আগের চেয়ে বেশি কিছু করার চেষ্টা করবো। এখন স্টেডিয়ামের কাজগুলো শেষ করা হচ্ছে। এরপর আমরা বসবো প্রথম টেস্টকে বিশেষ করে রাখার জন্য কি করা যায় তা নিয়ে। অবশ্য এমন কিছু করবো যেন এ স্টেডিয়ামের প্রথম টেস্ট স্মরণীয় হয়ে থাকে।’

টেস্ট ভেন্যু হিসেবে অভিষেকের আগে মাঠকে ঘিরে চলছে উন্নয়ন। এই ম্যাচকে সামনে রেখে বর্তমানে স্টেডিয়ামে সব ধরণের খেলা বন্ধ রাখা হয়েছে। বিসিবির গ্রাউন্ডস কমিটির চেয়ারম্যান মাহবুবুল আনাম জানিয়েছেন খুব দ্রুতই তৈরি হয়ে যাবে সিলেট স্টেডিয়াম।

‘আমরা সিলেটের প্রথম টেস্ট ঘিরে কাজ শুরু করে দিয়েছি। এরই মধ্যে এ মাঠে সব ধরনের খেলা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। মাঠের ভেতরে ঘাস লাগানো থেকে শুরু করে অবকাঠামোরও কাজ চলছে। আশাকরি টেস্ট ভেন্যু হিসেবে খুব দ্রুতই প্রস্তুত হয়ে যাবে সিলেট স্টেডিয়াম।’